www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

জেনে নিন চটজলদি মজাদার নাস্তার ৩টি রেসিপি



বছরের প্রতিটি দিনই সকাল হোক আর বিকেল আমাদের বাসায় কিছু না কিছু নাস্তা চাই-ই চাই। বাহিরের অস্বাস্থ্যকর খাবারের হাত থেকে রক্ষা করতে আমি ঘরেই বানিয়ে ফেলি মজাদার এবং স্বাস্হ্যকর নাস্তা। কিন্তু চাকুরীর কারণে আমার রান্নাঘরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় দেয়া বেশ কষ্টই হয়ে যায়। তাই আমি আধুনিক প্রযুক্তির পুরোপুরি সুবিধা নেই। আজকে এমনই কিছু ঝটপট নাস্তার রেসিপি নিয়ে হাজির হলাম।


স্যান্ডউইচ ম্যাকারের এর সাথে ফিস স্যান্ডউইচ



উপকরণ: পাউরুটি ৪টি। লেটুসপাতা ও টমেটো ফালি করে কাটা। ডিমসিদ্ধ ফালি করা কাটা। স্যান্ডউইচ-এর পুরের জন্য: মাছ পাতলা টুকরা বা ফিশ ফিলে ৪ টুকরা। ব্রেড ক্রাম্ব পরিমাণ মতো। লবণ স্বাদ মতো। গোলমরিচ-গুঁড়া পরিমাণ মতো। ময়দা পরিমাণ মতো। পারমেজান চিজ ১ টেবিল-চামচ (ইচ্ছা)। পার্সলে পরিমাণ মতো। ডিম ১টি।

সসের জন্য: বড় ১টি পেঁয়াজ মিহিকুচি। (পেঁয়াজ কেটে পানিতে ১০ মিনিট ভিজায়ে রেখে ছেঁকে ফেলতে হবে)। সিদ্ধডিম ১টি কুচি করে কাটা বা ভাঙা। শসা মিহিকুচি। মেয়নেইজ ৭,৮ টেবিল-চামচ। লেবুর রস ১ চা-চামচ। লবণ স্বাদ মতো। গোলমরিচ গুঁড়া। সব উপকরণ মিশিয়ে নিয়ে সস বানিয়ে রাখুন।

পদ্ধতি:

১। প্রথমে স্যান্ডউইচ ম্যাকারটি প্রি-হিট করে নিন সবুজ বাতিটি অফ হওয়ার আগে পর্যন্ত।



২। মাছে লবণ, গোলমরিচ-গুঁড়া, মরিচগুঁড়া দিয়ে মাখিয়ে রেখে দিন। ব্রেড ক্রাম্বের সঙ্গে চিজ আর পার্সলে মিশিয়ে নিতে হবে। ফ্রাইপ্যানে তেল দিয়ে মাছে পর্যায়ক্রমে ময়দা, ডিম, ব্রেডক্রাম্ব মাখিয়ে ভেজে নিতে হবে।


৩। পাউরুটিগুলোতে সবগুলোর একপাশে মাখন লাগিয়ে নিন। এবার পাউরুটির যে পাশে মাখন লাগানো হয়েছে, সেপাশে ডিম, টমেটো আর লেটুসপাতা দিয়ে সামান্য সস লাগিয়ে নিন। তার উপরে ফ্রাইড ফিশ আর পাউরুটি দিয়ে স্যান্ডউইচ ম্যাকারে দিন। বাটার লাগানো পাশটা নিচের দিকে দেবেন। স্যান্ডউইচ ম্যাকারে দেয়ার পর দুটি বাতিই অন হয়ে যাবে।



৪। আবার সবুজ বাতিটি অফ হওয়ার আগে পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর কেটে পরিবেশন করুন মজাদার এই স্যান্ডউইচটি।




পপকর্ণ ম্যাকারের সাথে চাট মাসালা ফ্লেভার পপকর্ণ



সিনেমা দেখতে দেখতে বা বন্ধুর সাথে আড্ডার সময় পপকর্ণ বা ভূট্টার খই খাওয়ার মজাই আলাদা। না কিনে বাড়িতেই সহজে পপকর্ণ ভেজে নিতে পারেন পপকর্ণ ম্যাকারের সাহায্যে। সাথে যোগ করতে পারেন ভিন্ন ভিন্ন ফ্লেভার।

পপকর্ণের জন্য প্রয়েজনীয় উপকরণ :

১। ভালো মানের ভূট্টার দানা ( বাজারে পপকর্ণেরর জন্য আলাদা দানা প্যাকেটে পাওয়া যায়)

৩। একটি পপকর্ণ ম্যাকার

৪। দারুচিনি, এলাচ, জিরা, ধনে, গোলমরিচ গুঁড়া প্রয়োজনমতো

পপকর্ণ ভাজার প্রক্রিয়া:

১। পপকর্ণ ম্যাকারের সাথে দেয়া কাপ এর পরিমান পপকর্ন মেশিনে দিয়ে ডাকনা লাগিয়ে দিন তারপর সুইচ অন করুন।



২। মেশিনের মুখের সামনে পাত্র রাখুন যেখানে পপকর্ন তৈরী হয়ে পরবে।

৩। ৩-৪ মিনিটের মধ্যেই তৈরী হয়ে মেশিনের মুখ দিয়ে পাত্রে এসে পরবে পপকর্নগুলো।



৪। সবশেষে দারুচিনি, এলাচ, জিরা, ধনে, গোলমরিচ, আলাদা তাওয়ায় টেলে গুড়াঁ করে নিন। সাথে বিটলবন মিশিয়ে চাট মসলা তৈরি করে নিন সাথে আধা টেবিল চামচ বাটার মিশিয়ে নিন। বাজারের প্যাকেট চাট মসলা ও ব্যবহার করতে পারেন।গরম পপকর্নের উপর ছড়িয়ে নিন।



হয়ে গেলো মজাদার চাট মাসালা ফ্লেভার পপকর্ণ!


সমুচা ম্যাকারের এর সাথে সমুচা তৈরির সবচেয়ে সহজ রেসিপি



বিকেলটা গড়ালেই পেটে কেমন একটা টান পড়ে আমার বাসার সবারই। এই গোধুলী বেলায় মুচমুচে গরম গরম সমুচা, সিঙ্গারা এসব পেটে না পুরলেই যেন নয়! সমুচা তৈরির সহজ রেসিপি জানা থাকলে রেস্টুরেন্টে গিয়ে কিনে খাওয়ার কি দরকার!

আর বাইরের খাবার-দাবার থাকে ভেজালে ভরা, অস্বাস্হ্যকর আর বাড়ির সবার স্বাস্থ্যের দিকেও নজর রাখতে হবে। খুব সহজে তৈরি করা যায় আর স্বাদের ভিন্নতা এবং পুষ্টিগুণ, সব মিলিয়ে সমুচা হতে পারে আপনার অবসরের বিকেলের নাশতায় এক চমৎকার এবং ঝটপট রেসিপি। তাই এবার না হয় ঘরেই তৈরি করে ফেলুন মজাদার ‘কিমা সমুচা।

তাহলে চলুন জেনে নেই সমুচা বানানোর সহজ রেসিপি।

উপকরণ:
• ২ কাপ ময়দা

• ১ কাপ কিমা (বিফ/চিকেন)

• ১/২ কাপ পেঁয়াজকুচি

• ১/২ চা–চামচ আদা–রসুন বাটা

• ১ টেবিল চামচ কাঁচামরিচ কুচি

• ১/৪ চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো

• পরিমাণমতো তেল

• পরিমাণমতো লবণ

• প্রয়োজন অনুযায়ী পানি

প্রণালি:

1. স্বাদমতো লবণ ও আদা–রসুন বাটা দিয়ে কিমা সেদ্ধ করে নিন। একটি প্যানে সামান্য তেল দিয়ে পেঁয়াজ সোনালি করে ভেজে নিন। তারপর কিমা দিয়ে দিন। এরপর লবণ, কাঁচামরিচ, গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে, স্বাদ দেখে নামিয়ে নিন।

2. এবার ময়দা মাখিয়ে নিন। ময়দা মাখানো হলে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে করে রুটি বেলে নিন। রুটিগুলো লম্বা চারকোনা করে কেটে নিন।

3. সমুচা ম্যাকারটি প্রি-হিট করে রাখুন।

4. প্রি-হিট হয়ে গেলে তাতে চারকোনা করে কাটা রুটিগুলো বিছিয়ে দিন।



5. তারপর রুটিগুলোর মধ্যে তৈরী করা কিমা দিয়ে এর ওপরে বাকি রুটিগুলো দিয়ে ঢেকে দিন।



6. মেশিনের ঢাকনা বন্ধ করে সুগন্ধ পাওয়ার আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।



7. হয়ে গেলে সাইজ মতো কেটে পরিবেশন করুন মজাদার সমুচাগুলো।



আপনি কি মজার মজার নাস্তা বানানোর সহজ এবং দ্রুত উপায় খুঁজছেন?
উত্তর যদি হয় "হ্যা", তাহলে আর দেরি কেন! ঝটপট বানিয়ে ফেলুন রেসিপিগুলো।
বিষয়শ্রেণী: ফটোব্লগ
ব্লগটি ৯৬৭ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৪/০৩/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • কাজে লাগবে।ধন্যবাদ
  • দীপঙ্কর বেরা ২৩/০৩/২০১৯
    জানলাম
  • আব্দুল হক ১৭/০৩/২০১৯
    মজার!
  • সব ঠিক আছে। কিন্তু এতকিছু করার সময় কই?
    • আশা মনি ১৬/০৩/২০১৯
      সময় বাচানোর জন্যই ত মেশিনের ব্যবহার!
      • আমি এই পোষ্ট টি গিন্নিকে দেখালাম। সে বল্ল আমার সময় নেই!
  • ভালো আইডিয়া।
 
Quantcast