www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

স্মার্ট যুগের স্মার্ট টিভি



আজকের স্মার্টফোনের যুগে একটি সাধারণ টিভি খুব বেশিক্ষন মানুষের আকর্ষণ ধরে রাখতে পারে না। ঠিক সেই জন্যই স্মার্ট টিভির জনপ্রিয়তা এত বেশি। আপনি আপনার নতুন একটি স্মার্ট টিভির সাথে উপভোগ করতে পারবেন আপনার পছন্দের নেটফ্লিক্স বা আইফ্লিক্স অনুষ্ঠান ও মুভি, কিংবা ইউটিউবে যেয়ে আপনার পছন্দের ভিডিও চ্যানেল বা গানের প্লে-লিস্ট ঘুরে আসতে পারবেন, অথবা আপনার বন্ধুদের সাথে বিশেষ কিছু উপভোগ করতে পারবেন যেমন থ্রিডি মুভি, সবটাই আপনার ফোনের চেয়েও বড় অসাধারণ এক ডিসপ্লে তে।



আর এই সময়ে স্মার্ট টিভির সাথে দারুণ সব নিয়ন্ত্রনের ডিভাইস ও লুকায়িত তারের সুন্দর সব ডিজাইনে টেলিভিশন সেট পাওয়া যাচ্ছে। যখনই একটি রিমোট কন্ট্রোল কিনবেন অবশ্যই তা যেনো ইউনিভার্সাল বা সার্বজনীন হয়, আর এমন একটি সাইজের হয় যা আপনি নিজের হাতে ধরে রাখতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন।

আবার চাইলে আপনি একটি সাধারণ এইচডি বা ইউএইচডি টিভিকে স্বল্পমূল্যের এইচডিএমআই বক্স বা স্টিক ব্যবহার করে সহজেই স্মার্ট টিভিতে রুপান্তর করে নিতে পারবেন। অতএব একটি নতুন টিভি কেনার সিদ্ধান্ত নেবার সময় আপনার বাজেটের কথা ভেবে নিন ও সেই বাজেটে কিভাবে সব ভালো ভালো জিনিস লুফে নিতে পারেন সেভাবে চিন্তা করে দেখুন। একজন স্মার্ট মানুষ তার প্রয়োজন অনুযায়ী যেকোন কিছুকে তার মত করে স্মার্ট বানিয়ে নিতে পারে।



[sb]পিকচার কোয়ালিটির হাতেখড়ি[sb/]


পিকচার কোয়ালিটি যেকোন ফ্ল্যাট-স্ক্রিন টিভি কেনার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বৈশিষ্ট্য। প্রায় প্রতিটি টিভি দর্শকেরই পিকচার কোয়ালিটির প্রতি আকর্ষণ রয়েছে, আপনার কাছে যদি এটি তেমন প্রয়োজনীয় না হয়ে থাকে তাহলে আপনি চাইলেই কম দামে বেশ বড় ডিসপ্লের একটি টিভি কিনতে পারেন, তবে তুলনামূলক একটি ছোট স্ক্রিনের টিভিও আপনাকে যেই দারুণ দেখার অভিজ্ঞতা দিতে পারতো তা আপনি মিস করে ফেলবেন।

পিকচার কোয়ালিটি শুধুমাত্র পিক্সেল গুনে বা স্পেসিফিকেশন শীট পড়ে বোঝার মত সহজ নয়। আপনার উচিত সবসময় ভালোমানের রিভিউ বা এই প্রতিবেদনটির মত কোনো গাইডলাইন পড়ে দেখা, তবেই ভালো ডিসপ্লে সম্পর্কে আপনার কিছু ধারণা হতে পারে।



এক্সপার্টদের রিভিউ পড়ে ও কোন শো-রুম বা মার্কেটপ্লেসে ভালো মানের একটি টিভি সামনাসামনি দেখার পর আপনি অবশ্যই পার্থক্যটা বুঝতে পারবেন। যত ভালো পড়াশুনা আপনি টিভি কেনার আগে করবেন, ততই ভালো মানের টিভির পেছনে বেশি খরচ করতে চাইবেন। আমাদের অভিজ্ঞতা থেকে এমন কিছু পয়েন্ট তুলে ধরেছি যা আপনার কাজে আসতে পারে :

বাজারে বর্তমানে সবচেয়ে ভালো পিকচার কোয়ালিটির টিভি হলো ওএলইডি টিভি, কিন্তু এই টিভিগুলো বেশ উচ্চ দামের। প্রায় প্রতিটি ফ্ল্যাট-স্ক্রিন টিভিতেই এলইডি বা এলসিডি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়, যা ওএলইডির চেয়ে অনেক আলাদা।

ভালো ছবির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো এর কনট্রাস্ট। কনট্রাস্ট মানে হলো পার্থক্য, যত বেশি কনট্রাস্ট হবে বিভিন্ন রঙের ব্যবধান তত স্পষ্ট করে বোঝা যাবে ও ছবি বা ভিডিও দেখতে দারুণ লাগবে। কালো রঙের একটি গাঢ় শেড তৈরি করতে পারা বা দেখাতে পারার ক্ষমতা থেকেই ছবির কনট্রাস্ট বেশি পাওয়া যায়।



কালার ব্যাপারটা সরাসরি কনট্রাস্টের দ্বারা প্রভাবিত হয়। এটি যেকোনো ভালো ডিসপ্লের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ একটি বৈশিষ্ট্য। এরপর প্রয়োজন কালারের সঠিকতা বা কালার অ্যাকুরেসি।

একটি উজ্জ্বল রুমে ম্যাট বা চকচকে প্রলেপবিহীন স্ক্রিন সবমিলিয়ে সবচেয়ে ভালো কাজ করে, কেননা এরা স্ক্রিনের ওপর কোন রকম প্রতিফলন ঘটতে দেয় না। গ্লসি বা চকচকে স্ক্রিন কালো রঙের মাত্রাকে ভালভাবে সংরক্ষণ করতে পারে, কিন্তু কোনভাবেই প্রতিফলন ঠেকাতে পারে না, অতএব এ ধরণের স্ক্রিন অন্ধকার ঘরে ব্যবহার করা ভালো।

কিছু কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের মধ্যে রেসল্যুশন, কালার গ্যামেট বা স্বরগ্রাম, ভিডিও প্রসেসিং, সর্বোচ্চ লাইট আউটপুট এবং ডিসপ্লে রেসল্যুশন (১০৮০পিক্সেল থেকে ফোর-কে পর্যন্ত) উল্লেখযোগ্য। সিদ্ধান্তে যাবার আগে আপনার লিস্টে থাকা প্রতিটি টিভির মডেলগুলো নিয়ে যত রিভিউ আছে সব দেখে নিন।



একটি ভালো টিভিতে খারাপ পিকচার সেটিংস একটি সাধারণ টিভিতে ভালো ক্রমাঙ্কের পিকচার সেটিংসের চেয়েও খারাপ পারফরমেন্স দেয়। অতএব শুধু নাম শুনে উত্তেজিত না হয়ে বুঝে শুনে তারপর টিভি কিনুন।

[sb]এখন স্মার্ট টিভির যুগ তাই স্মার্ট টাই বেছে নিয়েছি পুরনো টিভি এক্সচেঞ্জ করে[sb/]

বর্তমানে আমাদের দেশের কিছু নামিদামী প্রতিষ্ঠান আমাদের পুরনো প্রোডাক্ট গুলো এক্সচেঞ্জ করে নতুন প্রোডাক্ট দিয়ে থাকে। এদের মধ্যে রয়েছে ট্রান্সকম ডিজিটাল, বেস্ট ইলেকট্রনিক্স, পিকাবো ইত্যাদি তারা পুরনো টিভি এক্সচেঞ্জ করে দেয় নতুন টিভি, পুরনো ফ্রিজ এক্সচেঞ্জ করে দেয় নতুন ফ্রিজ, পুরনো এসি এক্সচেঞ্জ করে দেয় নতুন এসি।



আমি যে কারণে এই অফারে টিভি কিনেছিলাম তা হলো আমি এক্সচেঞ্জ ভ্যালুটা খুব ভালো পেয়েছিলাম যা অন্য কোথাও বিক্রি করলে পেতাম না। এর ফলে আমার ক্যাশ টাকা কিছুটা কম লেগেছিলো। তাছাড়া এক্সচেঞ্জ অফারের সাথে আমি আরো পেয়েছি ক্যাশব্যাক ডিসকাউন্ট, EMI ফেসিলিটি, হোম ডেলিভারি এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেটা সেটা হলো জেনুইন প্রোডাক্ট যেটা আমি ট্রান্সকম ডিজিটালথেকেই পেয়েছিলাম।

তো আপনি কবে যাচ্ছেন আপনার পুরনো টিভিটি পাল্টিয়ে একটি স্মার্ট টিভি আনার জন্য?
বিষয়শ্রেণী: ফটোব্লগ
ব্লগটি ৪০২ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১২/০৩/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • অসাধারণ পোস্ট!
  • হাতে টাকা এলে একদিন হয়তো...।
  • আপনার প্রতিটা পোষ্ট আমার খুব ভালো লাগে।
 
Quantcast