www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

বাংলা ও বাঙালী

হিমালয় থেকে কন্যাকুমারী আর মিজোরাম থেকে জয়সালমের- উত্তর থেকে দক্ষিণ আর পূর্ব থেকে পশ্চিম- এই ভৌগোলিক অঞ্চলে যত মনীষী জন্মেছেন তার থেকে বেশি মনীষী জন্মেছেন আমাদের বাংলায় | এটা শুধু বাংলার ইতিহাস বলে না, বলে সারা বিশ্বের ইতিহাস | এর কারণ বাংলার মনীষীদের কীর্তিকলাপ গোটা বিশ্বে সাড়া জাগিয়েছিল | যা আজ বাংলা ভাবতো, গোটা ভারত সেটা ভাবতো কাল | ভাবনার জগতে গোটা ভারতের থেকে একদিন এগিয়ে ছিল বাংলা | অবাঙালীরা বলে, 'ব্রিটিশ প্রথম এসেছিল বাংলাতে | বাঙালীরা তাদের চাটুকার | ব্রিটিশের পা চেটে ওরা দুনিয়ায় নাম কিনেছে | বাঙালীরাই ব্রিটিশদের রাজত্ব করার পথ প্রশস্ত করে দিয়েছে |' হিংসায় বলে | মাছ ভাতের বুদ্ধির কাছে ডাল রুটির শক্তি হেরে যায় তাই | একটা রাজ্য বা দেশ দেখাতে পারবেন যেখানে বাঙালী নেই ? সব জায়গায়, সব ক্ষেত্রে বড় বড় পদ অধিকার করে আছে বাঙালীরা | ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, বিজ্ঞানী, ব্যাঙ্ককর্মী, ব্যবসায়ী, শিল্পী-সাহিত্যিক, পর্বতারোহী- কোথায় নেই বাঙালী ? ভারতের থেকে বাংলা বিচ্ছিন্ন নয় | বাঙালীরা সারা ভারতের কথা ভেবে গেছে, ভারতমাতার মুখ উজ্জ্বল করেছে কিন্তু সেই মর্যাদা বাঙালীরা অবাঙালীদের কাছ থেকে পায় নি | বাঙালীদের বহু জায়গায় হেনস্থা হতে হয়েছে | বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে |

আমার এবার একটু দেখে নেব কোন কোন বাঙালী কী কী কাজ করেছেন | প্রথমেই আসি রামমোহন বিদ্যাসাগরের কোথায় | হিন্দুধর্মের অন্ধকার জগৎ থেকে, ব্রাহ্মণদের অন্যায় অত্যাচার থেকে সমগ্র ভারতের নারীদের তাঁরা মুক্তি দিয়েছিলেন | কীভাবে ? সতীদাহ প্রথা ও বাল্য বিবাহ প্রথার অবলুপ্তি ঘটানো ও বিধবা বিবাহ চালু করা | গোঁড়া হিন্দুদের আক্রমণ থেকে রেহাই পাননি এনারা | এরপর উঠে আসে তিনজন দার্শনিকের নাম- ঠাকুর রামকৃষ্ণ, স্বামী বিবেকানন্দ ও রবীন্দ্রনাথ | বেদ ও উপনিষদের এক নতুন ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন ঠাকুর | জীবের মধ্যেই শিব আছেন | জীবকে সেবা করা মানে শিবকেই পুজো করা | জীবের ক্ষতি করা মানে শিবের ক্ষতি করা | জীব শিবের মতোই সত্য শাশ্বত | সত্যই ধর্মের আর এক নাম | স্বামী বিবেকানন্দ চিকাগো বক্তৃতায় সারা বিশ্বের কাছে হিন্দুধর্মের ব্যাখ্যা দিয়েছেন | সহিষ্ণুতা ও একতা হল হিন্দুধর্মের প্রধান শক্তি | হিন্দুধর্ম সকল ধর্মের সকল সত্যকে বিশ্বাস করে | শ্রদ্ধাও করে | সকল ধর্মকে ঠাঁই দেয় | হিন্দুধর্মের মতো অন্য সকল ধর্ম সত্য ও শাশ্বত | শ্রী চৈতন্যদেব প্রেম, ভক্তি, ন্যায় ও অহিংসার বাণী ছড়িয়েছিলেন সারা ভারতে | নোবেলবিজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ সারা বিশ্বের দরবারে বাংলা ভাষা ও বাঙালীকে উপস্থাপন করেছিলেন | বাংলার সংস্কৃতিকে অমরত্ব দান করেছিলেন | এই প্রসঙ্গে বলে রাখি সত্যজিৎ রায়ের অস্কার পুরস্কার বঙ্গ সমাজকে বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি প্রদান করেছিল | সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র, অমর কথা শিল্পী শরৎচন্দ্র, বিদ্রোহী কবি নজরুল, আধুনিক কবি জীবনানন্দ ও প্রতিভাবান সুকুমার সারা বিশ্বে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন | উজ্জ্বল করেছিলেন বাংলার মুখ | ব্রিটিশের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাংলায় প্রথম শহীদ হয়েছিলেন ষোলো বছরের ক্ষুদিরাম | ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনে সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন, ঋষি অরবিন্দ প্রমুখ লড়েছিলেন ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে | ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে রাসবিহারী বসু ও নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর অবদান অতুলনীয় | তাঁদের সাহস অপরিসীম | কে বলে বাঙালী ভীরু ! বিজ্ঞানে পঞ্চটি নক্ষত্র নোবেল পুরস্কার পাওয়ার অধিকারী - আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু, আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়, সত্যেন্দ্রনাথ বসু, মেঘনাদ সাহা ও প্রশান্তচন্দ্র মহালনবিস | যদি করো নাম বাদ পড়ে যায় আমাকে ক্ষমা করবেন | আসলে বাঙালীরা নিজেদের সুপ্রাচীন বিচার ধারার সাথে বিদেশী সংস্কৃতির মেলবন্ধন ঘটিয়ে এক নবজাগরণের জন্ম দিয়েছিল এই ভারতে | বুদ্ধি না থাকলে বিদেশী সংস্কৃতি হজম করে উঠতে পারত না বাঙালীরা |

দুঃখ করে বলতে হয় যে বাংলার ঐতিহ্যের কথা বাঙালীরাই বিস্মৃত হয়েছে | হারিয়ে ফেলেছি আমরা নিজেদের সত্তা |সত্যিই আমরা আত্মঘাতী | নিজের মায়ের মুখ ভুলে অন্যের মায়ের গুণগান গাই | যেদিন বাঙালী বাংলার ঐতিহ্যকে শ্রদ্ধা করতে শিখবে সেদিন বাঙালী আবার নিজের অস্তিত্ব খুঁজে পাবে | তা না হলে গোটা বাঙালী জাতি চরম সংকটের মধ্যে পড়বে |
বিষয়শ্রেণী: প্রবন্ধ
ব্লগটি ৫৫ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৯/০৯/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast