www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

চিনির দাম আকাশচুম্বী



চিনির দাম হঠাৎ আকাশচুম্বী! দেশদ্রোহী-মওজুদদারদের কেন গুলি করা হচ্ছে না?
সাইয়িদ রফিকুল হক

বাংলাদেশটাকে একটি হায়েনাগোষ্ঠী সবসময় পিছনের দিকে টানছে। এরা দলে-বলে ভিন্ন নামে হলেও আসলে কাজেকর্মে সবাই এক ও অভিন্ন। এই মুখচেনা-শয়তানচক্র সবসময় বাংলাদেশের স্থিতিশীলতার বিরুদ্ধে। এরা মানুষ-নামের জানোয়ার—অথবা, এরা দেখতে একটুখানি মানুষের মতো—কিন্তু এরা আসলে ভিতরে-বাইরে ভয়ানক জানোয়ার। আর এই জানোয়ারশ্রেণীর নাম মওজুদদারগোষ্ঠী। এরা এই বাংলাদেশে আদ্যিকাল থেকে বংশপরম্পরায় এমন কোনো শয়তানী দুষ্কর্ম ও অপকর্ম নাই যে তারা করছে না! এইসব মানুষ-নামের জানোয়ার ইদানীং আরও বেশি বেপরোয়া হয়েছে।

মওজুদদারশ্রেণী শয়তানের বংশধর। এরা অতিশয় মুনাফালোভী। আর এদের মধ্যে কোনো মনুষ্যত্ব নাই। এরা স্বয়ং ইবলিশ শয়তানের চেয়েও নৃশংস। আর এরা নিশ্চিতভাবে বর্তমান বাংলাদেশরাষ্ট্রের আবর্জনা মাত্র। এরা মানুষ ও মানবতার অন্যতম প্রধান শত্রু।

এ-বছর রোজার আগে চিনির দাম ছিল ৪০-৪২ টাকা। আর শহরে কিংবা স্থানভেদে তা সর্বত্র ছিল ৪৫-৪৮ টাকা মাত্র! আর সেই চিনি রোজার শুরু থেকে হয়ে গেল ৫৫-৬০ টাকা। আর তা এখন একলাফে বেড়ে ৭৫-৮০ টাকা কেজি! স্পর্ধার একটা সীমারেখা থাকা দরকার। সবকিছুরই একটা সীমারেখা থাকে। কিন্তু দেশের ভিতরে এইসব মওজুদদারশ্রেণীর সীমাহীন-ধৃষ্টতা দেখে মনে হয়: দেশে বুঝি কোনো মানুষ নাই। আর দেশ চলছে বুঝি ঘুমের ঘোরে! এইসব মওজুদদারশ্রেণী রাতারাতি ধনী হওয়ার জন্য দেশের সাধারণ মানুষগুলোকে একের-পর-এক জবাই করে যাচ্ছে! আর রাষ্ট্র তা দেখে ভাবলেশহীনচিত্তে একেবারে নির্বিকার। যারা মানুষহত্যা করছে—তারা নিশ্চয়ই সন্ত্রাসী। আর যারা মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, আর মানুষকে জিম্মি করে প্রতিনিয়ত তাদের চড়ামূল্যে জবাই করছে—তারা এই সমাজের সবচেয়ে বড় জঙ্গী! রাষ্ট্রের দায়িত্ব এদের নির্মূল করা। আর সরকার এদের নির্মূল করলে জনগণ খুশিই হবে। একটা বিষয় ভেবে পাই না—এদের কেন এখনও গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে না! রাষ্ট্র তার প্রয়োজনে ও জনগণের জানমাল-রক্ষার স্বার্থে এইজাতীয় নরপশু ও অমানুষগোষ্ঠী—মওজুদদারশ্রেণীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করবে। এটি রাষ্ট্রের দায়িত্ব ও কর্তব্য। রাষ্ট্র কখনও দেশের ভিতরে আগাছা-পরগাছা জিইয়ে রাখতে পারে না। এটি রাষ্ট্রের ধর্ম নয়।

চিনি-ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে সিন্ডিকেট করে একনাগাড়ে চিনির দাম বাড়িয়েই চলেছে। আর এরা নানারকম শয়তানী-কথাবার্তা বলে জনমনে চিনির ব্যাপারে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। সামান্য চিনির দাম হঠাৎ কেন এতো বেশি হবে? এর নেপথ্যে রয়েছে কিছুসংখ্যক দেশ-মানবতাবিরোধী-কালশয়তান। এরা নিজেদের লাভের আশায় সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে দেশের ভিতরে চিনি নিয়ে একপ্রকার বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করছে। এরা সবাই কালোবাজারি। আর এরা মানুষ-নামের অযোগ্য। তাই, এদের শাস্তি হওয়া উচিত একমাত্র মৃত্যুদণ্ড।

দেশে বর্তমানে চিনির কোনো ঘাটতি নাই। দেশের আনাচে-কানাচে গুদামগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে চিনি মওজুদ রয়েছে! আর তা সত্ত্বেও একটি নৃশংস-শ্রেণী পরিকল্পিতভাবে দেশের ভিতরে চিনির দাম বাড়িয়েই চলেছে। এদের নির্মূল করবে কে? আর কে এদের কালোহাত ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দিবে? নিশ্চয়ই রাষ্ট্র। দেশের জনগণ এখন সেই রাষ্ট্রের দিকে চেয়ে আছে। আর রাষ্ট্রের মনোনীত প্রতিনিধি হচ্ছে দেশের নির্বাচিত-সরকার। তাই, এই মওজুদদারগোষ্ঠীকে চিরতরে নির্মূল করার দায়িত্ব সরকারের। আর জনগণ সবসময় সরকারের এমনতর মহৎকাজে সাহায্য-সহযোগিতা করতে সদাপ্রস্তুত।

মওজুদদারশ্রেণীর তাণ্ডবে গুদামে-গুদামে চিনি গলে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে! তবুও দেশবিরোধী-ঘাতক নামক এই চিহ্নিত-হারামজাদা-মওজুদদারশ্রেণী বাজারে অবাধে চিনি-সরবরাহ করছে না! এরা কত বড় হারামজাদা! আর মনে হয়: এরা হারামজাদার চেয়েও বড় কোনো হারামজাদা!

সাইয়িদ রফিকুল হক
মিরপুর, ঢাকা, বাংলাদেশ।
১২/০৮/২০১৬
বিষয়শ্রেণী: সমসাময়িক
ব্লগটি ২৪৫ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৩/০৮/২০১৬

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • সোলাইমান ০৭/০৯/২০১৬
    সুন্দর কথা।
  • আনিসা নাসরীন ১৪/০৮/২০১৬
    হায়রে সিণ্ডিকেট
  • স্বপ্নময় স্বপন ১৩/০৮/২০১৬
    অত্যন্ত সত্য ভাষণ! যথার্থ সময়োপযোগী বাণী প্রদানের জন্য বিনম্র অভিবাদন!
 
Quantcast