www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

দীর্ঘ কবিতা- কাঁটা- পৃষ্ঠা ৩

কাঁটা

অমিত মিতা কোনও দিনও করেনি করো ক্ষতি।
তবু ঈশ্বর কেন কেড়ে নিলেন তাদের চোখের জ্যোতি।।
পুলিশের মনে জাগে প্রশ্ন, যেমন ধাক্কা খায় গাড়ি রাস্তার বাঁকে।।
পানশালায় যাওয়া কথা অতুল জানিয়েছিল কাকে।।
আত্মীয়দের মনে কী কোনও পাপ লুকিয়ে আছে।
সুন্দর সম্পর্কের গভীরেও রক্তলোভী হিংসা বাঁচে।।
কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে আসবেই বিষধর সাপ।
পুলিশ কারোকে ছাড়বে না, আইন সবার বাপ।।
খুনের কথা শোনার পর তিন বন্ধুর মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে।
শরীর সবল হওয়া সত্ত্বেও কাতরায় সবাই অজানা জ্বরে।।
ছোট বেলার বন্ধু সব, কেন মনে হিংসা থাকবে।
এটাই নীতি- সন্দেহের চোখে পুলিশ সকলকেই দেখবে।।
অতুলের খুনিকে ধরতে জীবন দিতে চায় সবাই।
দীপক বলে, 'আমি মজা করেছিলাম, এখন খুনির শাস্তি চাই'।।
জেরার মুখে পড়ে ওরা জানায় সব কথা, লুকোয় না কিছু।
অতুলের হবু সহকর্মীদের নাম ও নেহার ঠিকানা- মাটির অধিকারে সরব কচু।।
যতক্ষণ না আসল খুনি ধরা পড়ে, সকলেই যে দোষী।
ভাড়াটে খুনিদের ধরতে পারলেই, রাঘবের গলায় ফাঁসি।।
সেদিন রাত্রে করা এসেছিল পানশালায়- শুরু হল খোঁজ।
করা নিয়েছিল পিছু তা জানা কী অত সহজ।।
খুনের কারণ বড়ই গভীর, মনে হচ্ছে দিন যাচ্ছে যত।
ঝাঁপিয়ে পড়ে লড়ছে পুলিশ, খুঁজছে কোথায় ক্ষত।।

(চলবে)
বিষয়শ্রেণী: কবিতা
ব্লগটি ৩২ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৬/১১/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast