www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

মানব দেহে ষাঁড়ের মাথা

তখন কলেজে পড়তাম | ৪৫ বি বাসে চেপে কলেজে যেতাম রোজ | কলেজে নামই ছিল '৪৫-এর বি' | ঘড়ি ধরে দু ঘন্টা আগে বাড়ি থেকে বার হতে হতো | বাস চলতো গরুর গাড়ির মতো | যেখানে স্টপ নেই, সেখানে দাঁড় করিয়ে লোক ডাকতো কন্ডাকটর, 'আসুন দাদা, আসুন দিদি | বাস খালি আছে' | আমি বলতাম, 'দাদা লোককে কি ঘুম থেকে তুলে আনবেন | দয়া করে চলুন না' | ড্রাইভার (চালক) জবাব দিতেন, 'এত তাড়া থাকলে বাস থেকে নেমে যান' | কি করবো, নিরুপায় হয়ে বসে থাকতে হতো | গরুর গাড়িতে চেপে কলেজ যেতাম এই টাইম মেশিনের যুগে ! আবার এক এক সময় এই গরুর গাড়ি জেট প্লেনে পরিণত হয়ে যেত ! পিছনে আর একটা ৪৫ বি থাকলে রেস শুরু হয়ে যেত | কে আগে পৌঁছবে গন্তব্যস্থলে | প্রয়োজন হলে পথচারীকে পিষে মেরে দিয়ে এগিয়ে যাবে বাস | তখন তারা কোনও যাত্রীকে বাসে তুলবে না, আবার সঠিক স্টপে কোনও যাত্রীকে বাস থেকে নামতেও দেবে না | যাত্রীরা চিৎকার করলেও তাদের কথায় ড্রাইভার ও কন্ডাক্টর কান দেবে না | এই রেসের জন্য, ৮ থেকে ৮০, কত নরনারীর জীবন চলে গেছে | তবুও বাসের ড্রাইভার ও কন্ডাক্টরের স্বভাব বদলায়নি | কারণ যাদের দেহটা মানুষের আর মাথাটা ষাঁড়ের তারা কি কোনও দিনও এসব বুঝবে ? তবে এদের পরিবারের কেউ এই ভাবে পথদুর্ঘটনায় মারা গেলে এদের টনক নড়বে !

কীভাবে মানুষকে বাঁচানো যাবে ? কিভাবে এই মানব দেহধারী ষাঁড়গুলোকে শান্ত করা যাবে? যখন এ ভাবে রেস শুরু করবে কোনও বাস চালক, সাথে সাথে বাসের নম্বর ট্রাফিক পুলিশকে ফোন করে জানিযে দিতে হবে যাত্রীকেই | সেই বাসের লাইসেন্স সাথেসাথে কেড়ে নেবে পুলিশ এবং ড্রাইভার, কন্ডাকটর ও মালিককে শ্রীঘরে পাঠিয়ে দেবে | আইন নিজে হাতে না তুলে নিয়ে আইনের দেখানো পথেই চলতে হবে | জেলে না গেলে ষাঁড়ের মাথাটা ঠান্ডা হবে না | বাকি ষাঁড়গুলো দেখে শিখবে কোনটা ঠিক আর কোনটা ভুল |

আসুন সকলে মিলে পথদুর্ঘটনার ইতি টেনে দিই |
বিষয়শ্রেণী: অন্যান্য
ব্লগটি ৩৭ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৩/১০/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast