www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

আয় ছুটে আয়

আয় ছুটে আয়
খোকন সোনা
ডাকে তোর মায়।

চাঁদের রুটি
খাবি নাকি ?
বেলা বয়ে যায় ।

রাজার গল্প
শুনাবো রে
লক্ষ্মী সোনা আয় ।

পরীর সাথে
বিয়ে দেবো
ঢাক ঢোল বাজায়।

খেলা ধূলা
ফেলে রে তুই
দৌড়ে চলে আয় ।

কাঁদবি তখন
থাকবে না রে
যখন তোরই মায়।
বিষয়শ্রেণী: কবিতা
ব্লগটি ৩৬৩ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৬/০৯/২০১৭

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • আজাদ আলী ২৩/০৯/২০১৭
    Sweet Rhythm and real thinking.Thanks
  • ফয়জুল মহী ১৭/০৯/২০১৭
    অনুভবের অন্যান্য কাব্যিকতায় বিমোহিত হলাম
  • সাঁঝের তারা ১৬/০৯/২০১৭
    অনবদ্য
    • রুনা লায়লা ১৭/০৯/২০১৭
      ধন্যবাদ প্রিয় কবি।শুভেচ্ছা সতত।
  • Nice.
    • রুনা লায়লা ১৭/০৯/২০১৭
      Thanks dear.
  • লেখাটা ভাল লেগেছে।তারপরও সমালোচনা করতে ভাল লাগে।এই ছড়াটি পড়ে ভালোই লাগছিলো তবে শেষ তিন লাইনে একটা সুর কেটে গেলো।বিষণ্ণতা ছেয়ে গেলো।শেষে এরকম করুন পরিণতির কথা উল্লেখ করাটা যুক্তিযুক্ত কিনা ভেবে দেখবেন।খোকন সোনাকে বিভিন্ন স্বপ্ন দেখিয়েছেন।তাকে কল্পনার রঙে রাঙিয়েছেন।খোকন সোনা নিশ্চিতভাবেই শিশু ,তারা কল্পনার সাগরে ভাসতে চাইলেও বাস্তবতা বুঝে ওঠার ক্ষমতা হয়না কিংবা এতো ছোট কাউকে কেউ বাস্তবতা শেখাতে চায়না।সেখানে আপনি কি অবলীলায় বাস্তবতা মেলে ধরলেন।যেটা খোকন সোনা চায়নি।তারপরও লেখিকা যদি চায় যে,খোকন সোনার বাস্তবতা এই বয়সে শেখাটা জরুরি তবে সে কথা ভিন্ন।
    • রুনা লায়লা ১৭/০৯/২০১৭
      বাহ ! গঠনমুলক মন্তব্যে স্বাগতম প্রিয় লেখক।সত্যিই খুব ভালো লাগলো। আপনার চিন্তাধারা সত্যিই প্রসংশনীয়।সুন্দর বিষয়ে গঠনমুলক সমালোচনা করলেন।আপনার মতামতের সাথিআমি সহমত। কিন্তু কোনো কবিতার যখন ভাবোদয় হয় ;তখন যে ভাবনা মাথায় আসে ,ঠিক ঐ ভাবনায় কবিতাটি রচিত হয়।কবিমনে যা আসে তাই লেখা হয়।বাস্তবতা তখন ম্লান থাকে।লেখাটা হতে পারে বাস্তব অথবা রূপক । এটা একান্তই আমার নিজস্ব মতামত। অন্যদের ক্ষেত্রে এটা নাও হতে পারে।শিশুকে এখানে বাস্তবতা শেখানো হয়নি। মা খোকাকে ডাকছে।খোকা আপন মনে খেলছে।কিন্তু মায়ের মন আবেগপ্রবণ,তাঁর (মায়ের) আবেগটা কবিতায় ঝরে পড়েছে। অনেক ধন্যবাদ কবি। ভালো থাকুন সবসময়।
  • অ ন ব দ্য ছ ড়া।
 
Quantcast