www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

কঠিন পাথর

কঠিন পাথর
আব্দুল কাদির মিয়া
=============
ওহে পাথুরে পাহাড়
বলি কিসে তোমার ডর?
দাওনা গুঁড়িয়ে বাদে-
রোষা তোমার পর।

শক্তি বলয়ে তুমি-
পাষাণের ঘরে,
হৃদয় রাখিলে নিজ-
জাত নাম ধরে।

তুমিই জ্বলিবে নরক-
জ্বালানির তরে?

পুড়াবে গ্রাসিতো সবই-
শত অবিরলে।

বর্ণভেদে সে রঙ তেজে হুংকার-
যেথা জলের পৃথিবী মজে-
একতিলে যার।

তবে কেন আজ বোকা তুমি-
জমিনের পরে?
তোমায় কেউ কেটে করে চিড়-
কেউ গুঁড়ো করে।

অর্শ্বে আরোহী জনের-
পাদুকার দোলে,
ওরা দাপটে দাপটে চলে-
হিংস্র সেই ক্রোধানলে,
জঙ্গি ধামালি তুলে-
বিনাশের ছুড়ে জাল-
কাদাজলে টেনে হাল।
লোপাট মাতালে।

তোমার বুক খানি মলে।
সেতো পাতিলে সেই পথে যেন-
নেই কোনো মান।

ওরা নিজেরই অসৎ ঘোরে-
কারো বধের ঘটা ধরে,
সেথা তরবারী ঘষে তোমার-
পরে তোলে শাণ।

ওহে পাথুরে পাহাড় বলি-
কিসে তোমার ডর?
তবে কি পাষান তোমার-
নয় অন্তর?

কষ্টে ব্যথিত হৃদয়-
তাপে ছ্যাঁকা পড়ে,
তাঁরই জ্বলীয় পচিনাজানি-
ভিজে তনু পরে।

তোমার গতরে সেতো-
পাই আমি খুঁজে,
তাই অন্তর পাষাণ তোমার-
নাহি আসে বুঝে।

মাটি তবে কম্পিত করে চৌচির,
পাহাড় পাষাণে উঠে-
বেহাল অধীর।

এবার বলেতো সে-
কিসে তুমি বলো ওহে নর,
প্রভুর গোলামে আমি-
আছে অন্তর।

সাধ্য নাহিতো আমার-
সেই নরকের পতি,
অনল জ্বালিতে আমায়-
করে পাষাণের গতি।

তোমারই জাতের বদ-
দিতে চির জ্বাল,
আমার নিয়তি আমি-
দিবো হাঞ্জাল।

আজ এই জীবনের শত গুঁড়ো চিড়-
যেন স্বর্গ সোহাগে আমি,
রতনের নীড়।

ঐ সহিবো কেমনে অখের-
আজই কিসে হুংকার,
শত বজ্র আতঙ্কে হেন-
আমি কঠিন পাথর।
----------------------------------
বিঃদ্র- হাঞ্জাল- যার দ্বারা নরক প্রজ্জ্বলিত করা হবে।
পচিনা- ঘাম
বিষয়শ্রেণী: কবিতা
ব্লগটি ১৩২ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ২০/০৪/২০২২

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast