www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

পরাণের ধন

পরাণের ধন
আব্দুল কাদির মিয়া
============
চলে গেলে তাঁর পরাণের ধন
বলে, কিরে বাবা গেলি কই।
ভাবলি না তুই একবার মনে-
আমি কি তোর কেউ নই?
মরবি ই যদি তবে মারলি না কেন-
এই পাষাণের বুকে মেরে?
নহে তো তুই চলে যাবার পর-
থাকে কেমনে সে তোর ঘরে?
চুপি চুপি তুই একবার এসে-
দেখে যা গভীর রাতে।
তোর পড়ার টেবিলে তুই-
পড়তি যেমনি,যে বই-
এই মূর্খের হাত বুলায় তাতে।
শুধু এই টুকুই করে-
ক্ষান্ত নহে,
তোর জামাটি ঝুলানো বাঁশে-
ঠিক তেমনিই আছে তুই,
রেখেছিলি যেমন,
এই নেড়ে চেড়ে শুধু শুধু হাসে।
ঘুমোতে যে তুই শিয়রে রাখিয়া-
বোতলে ভরিয়া কিছু জল।
তুই চলে যাবার পর-
সেথা ভিজিয়ে রেখেছে,
তোর গাছে ফুটা,
গোলাপের কালো এক ফুল।
নিজেই নিজেকে বলে-
কথাগুলো ফেল ফেলে,
জানি কার সাথে করে মিছে খেলা।
তাঁর দিন যেন রাতে ভরা-
আর রাত গুলো রোদ বেলা,
চোখ যেন সারাদিন,
কতদিনে একদিন,
ক্লান্তির স্রোতে ঘুম,
পায় কিছু বেলা।
দন্ত কালো কিছু ক্ষয়ে তাঁর আজ-
চোখের পাতায় যেন,
কালো কাজলের সাঁঝ।
উড়ে কেশ সেই দূরে,
নাসিকার অতলে-
ধূলির মেলেতে শিশু-
যেন একা একা নেই কিছু,
তবুও সে আনমনা-
অবুঝের খেলে।
যায় কেটে সময়ের-
সবি প্রতিদিন,
লোকেরা ডাকিলে পিছু-
এই মৃদু হেসে কিছু-
ঢেকে মুখ চোখ কোনে,
নিমিষেই নেমে আসে-
জনমের ঘিন।
বিষয়শ্রেণী: কবিতা
ব্লগটি ৪১ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৮/০৯/২০২০

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast