www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

পঞ্চ

পঞ্চঃ
----
***
--আমি ঘটনার ' সাতেও নেই, পাঁচেও নেই'।মানে পুরো ব্যপারটির কোথাও আমি নেই।
--পাঁচজনে পারে যাহা,তুমিও পারিবে তাহা।
--দশে মিলে করি কাজ,হারি জিতি নাহি লাজ।
প্রথম লাইনটিতে 'সাতে-পাঁচে' কোনও একটি বিষয়ের অখন্ডতা বুঝাচ্ছে।
দ্বিতীয় লাইনটিতে পাঁচজন কেবল পাঁচ জনকে নয়,অনেককে বা বহুকে বুঝাচ্ছে।
তৃতীয় লাইনটি দশে মিলে অর্থাৎ 'দশজনে বা বহুজনে বা সকলে' মিলে বুঝাচ্ছে।
একহাতে পাঁচ আঙ্গুল থাকে,দুইহাতে দশ।এভাবে পঞ্চ থেকে দশ এবং বহু অথবা বিশালের ধারণার সূত্রপাত।
***
পঞ্চ বলতে আমরা পাঁচ ( five)কেই বুঝি প্রচলিত অর্থে।
কিন্তু প্রাচীন সমাজে পঞ্চ দিয়ে পাঁচ কেবল নয়,দশ, বহু,এমনকি অখন্ডকেও বুঝাতো।
বাক্স থেকে মার্বেল পেতে ইচ্ছে করলো,তাহলে চয়ন করতে হবে,পাওয়ার জন্য চয়ন করতে হয়।একহাতের পাঁচ আঙুল দিয়েই খাবলে ধরে তারপর চয়ন করলেন বা সংগ্রহ করলেন।দু'হাতে যদি খাবলে ধরেন তাহলে দশ আঙুল ব্যবহার হলো।এভাবে পাঁচ হলো দশ।
চয়নকৃত বিষয় কিন্তু পাঁচ বা দশ নয়,বহু।তাই পঞ্চ বহু অর্থেও বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত হয়।
***
পৃথিবীটা ক্ষিতি-অপ-তেজ-মরুৎ-ব্যোম এই পঞ্চভূতের সমাহার( প্রাচীন মতে)।
বিশ্বজগতকে অখন্ড ধারণায় পাওয়ার জন্যই পঞ্চের ধারণায় প্রাচীন মানবগণ পৌঁছেছিলেন।তাদের ধারণানুযায়ী পঞ্চাঙ্গুলি থেকে পঞ্চভূত পর্যন্ত সবই পঞ্চ এবং সেই পঞ্চ থেকেই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের বিকাশ।সেজন্যই মানুষ মরে গেলে বলে তার পঞ্চত্ব প্রাপ্তি ঘটেছে।ইংরেজিতে punch আর বাংলা পঞ্চ খুবই কাছাকাছি।
***
পঞ্চ শব্দটিতে ব্যক্তিগতভাবে আমি খুবই আগ্রহ বোধ করি।কারণ পঞ্চ দিয়ে আছে বহু আকর্ষনীয় শব্দ।
* পঞ্চকর্মঃ বমন,রেচন,নস্য,অনুবাসন - এগুলো শারিরীক চিকিৎসা সমন্ধীয়।
উৎক্ষেপণ,অবক্ষেপণ,আকুঞ্চন,প্রসারণ,গমন - এগুলো হলো পঞ্চকর্ম।
* পঞ্চকোষঃ অম্লময়-কোষ,প্রাণময়-কোষ,মনোময়-ক
োষ,বিজ্ঞানময়-কোষ,আনন্দময়-কোষ।
* পঞ্চগব্যঃদধি,দুগ্ধ,ঘৃত,গোময়,গোমূত্র।
* পঞ্চগুণঃশব্দ,স্পর্শ,রূপ,রস,গন্ধ।
***
পঞ্চবটী বনঃ অশ্বত্থ, বট,বেল,আমলকী,অশোক গাছ আছে যে বনে।
* বৃক্ষ- তরু,পাদপ
বটবৃক্ষ হলো বৃক্ষনাথ
পারিজাত হলো বৃক্ষরাজ।
সংসার হলো গৃহবৃক্ষ।
বৃক্ষ শব্দের মূল অর্থ হলো সামাজিক উৎপাদন সংগঠন।
সে সংগঠনের যতরূপ বৃক্ষও ততরূপ।
এই সব বৃক্ষাদি নিয়েই "সংসার-অরণ্য"।
***
সমাজে বটবৃক্ষ হলো পণ্য-উৎপাদক যৌথব্যবস্থা।
পারিজাত হলো রপ্তানীমূলক পণ্য-উৎপাদন ব্যবস্থা।
গৃহবৃক্ষ হলো কুটির শিল্প ব্যবস্থা।
এভাবেই প্রাচীন মানুষেরা ভাবতেন,বটবৃক্ষক
ে প্রাচীন মানুষেরা উদ্ভিদলোক ও মানসলোকে দেখতে পেতেন।
* অশ্বত্থ ---- যৌথ সংগঠন।
* বিল্ব( বেল গাছ)---সামরিক সংগঠন।
* বট----- ব্যবসায়ী সংগঠন।
* অশোক----- বিনোদন সংগঠন।
* আমলকী( ধাত্রী গাছ) আমলা-সংগঠন।
এই সবই বৃক্ষ এবং এদের সমাহারই পঞ্চবটী।
***
পঞ্চ দিয়ে তৈরী আরও বহু শব্দ আছে যার মধ্যে লুকিয়ে আছে আমাদের প্রাচীন সমাজের ইতিহাস,সমাজ ও চরিত্র।
( পুনশ্চঃ পঞ্চ = প+ ( ঞ্+চ)
*ঙ,ঞ,ণ,ন,ম,ং এগুলো বিন্দু।
ঙ,ঞ,ণ,ং দিয়ে কোনও শব্দ শুরু হয় না। এগুলো পুরো অব্যক্ত এবং তাই রহস্যময়।ন কিছুটা ব্যক্ত এবং ম ব্যক্ত কিন্তু সীমিত।বিন্দু অস্তিত্ব লাভ করে অ বর্ণে)
আজ এ পর্যন্তই।
------- কৃতজ্ঞতাঃ বঙ্গীয় শব্দার্থকোষ।
১০/০৬/২০১৯
বিষয়শ্রেণী: প্রবন্ধ
ব্লগটি ৪৮ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১০/০৬/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • ভালো লাগলো।
 
Quantcast