www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

সেরা নারী

আমার দৃষ্টিতে পৃথিবীতে এ যাবৎ কালের সেরা সুন্দরী নারী ইন্দিরা গান্ধী,দ্বিতীয় সুন্দরী লেডি ডায়না,তৃতীয় প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।
ইতিহাসে অনেক সুন্দরী নারীর গল্প পড়েছি বটে কিন্তু চোখে দেখি নি,বা তাদের বেঁচে থাকাকালীন সময়ে আমি ছিলাম না,সেজন্য উনারা আমার তালিকায় নেই।
ইন্দিরা গান্ধীকে টিভিতে অনেক দেখেছি,উনার জীবনী পড়েছি,বেঁচে থাকালীন সংবাদ পত্রে উনার কাজকর্ম সম্পর্কে অবগত হয়েছি।অসাধারণ ব্যক্তিত্বময়ী এই নারী রূপে গুণে অতুলনীয়া ছিলেন।রূপ ও গুণের সংমিশ্রণটা সাধারণত কম হয় বলে আমার একটা ধারণা।
আমি তখন রংপুর বেগম রোকেয়া কলেজে ইন্টার ক্লাসে পড়ি।কলেজ থেকে ফেরার পর আম্মা খবরটা দিলেন- নৃশংসভাবে তাঁকে হত্যা করা হয়েছে।অবর্ণনীয় মনোকষ্ট নিয়ে টিভির সামনে বসেছিলাম আমি।
সম্ভবতঃ ৮০ কিংবা ৮১ এর দিকে সংবাদপত্রের মাধ্যমে লেডি ডায়নার সাথে দেখা।তখন সাধু ভাষায় প্রকাশিত দৈনিক ইত্তেফাক রাখা হতো বাসায়- আমি ডায়নার খবরগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়তাম।উনি স্কুলের টিচার ছিলেন এবং বিভিন্ন দাতব্য কাজে সংযুক্ত ছিলেন।প্রিন্স চার্লস তার প্রেমে পড়লেন- সাধারণ নারী হয়ে গেলেন বৃটিশ রাজপরিবারের পুত্রবধু।
কি এক অজানা কারণে বিটিভি( তখন চ্যানেল একটাই ছিলো) পুরো বিয়ের অনুষ্ঠানটি সরাসরি প্রচার করেছিলো আর আমরা হা করে রাজকীয় সেই বিয়ের অনুষ্ঠানটি সরাসরি আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত দেখেছিলাম।
সাদা গাউন পরা লেডি ডায়না তার গাউনের লম্বা লেজটি কতজন দাসী বয়ে নিয়ে যাচ্ছিলো,ডায়নাক
ে অপরূপ লাগছিলো।
প্রিন্স চার্লস আর প্রিন্সেস ডায়নার( বিয়ের পর প্রাপ্ত উপাধি) দুটো সন্তানও হয়েছিলো।তারপর একটা সময় দেখা গেলো জনপ্রিয়তায় ডায়না চার্লসের চেয়ে বহুগুণে এগিয়ে।
তাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়াদি নিয়ে অনেক লেখা পড়েছি,সে বিষয়ে না যাই,তবে চার্লস পরবর্তীতে তার ভূতপূর্ব প্রেমিকাকে বিয়ে করেন ডায়না মারা যাবার পর,এবং তাদের সম্পর্কও টিকে ছিলো ডায়নার সাথে চার্লসের বিয়ের পরও।
চার্লস যদি তার প্রেমিকাকে এতোটাই ভালোবাসতেন তবে ডায়নার প্রেমে কি করে পড়েছিলেন? প্রেমিকাকে ঠকিয়ে ডায়নাকে কেন বিয়ে করেছিলেন? একি মোহ ছিলো তবে?
ভালোবাসা আর মোহ কখনই এক নয়- মোহ মোহগ্রস্ত করে রাখে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত,তারপর উধাও হয়ে যায়,ততক্ষণে ক্ষতি যা হবার হয়ে যায়।
ডায়নার একটা প্রাপ্তি তিনি প্রিন্সেস উপাধি পেয়েছিলেন,রাজপরিবারের ভবিষ্যৎ উত্তরাধীকারীদের মা হয়েছিলেন।বাস্তবে মানসিক ভাবে কি পেয়েছিলেন জানি না।
সেই ট্যানেলে রোড এক্সিডেন্টে যখন ডায়না মারা যান কষ্ট পেয়েছিলাম।তার অন্ত্যেষ্টিযাত্রার পুরোটাই টিভিতে দেখিয়েছিলো।আমরাও দেখেছিলাম- মনে তখনও প্রশ্ন ছিলো অনেক,এখনও আছে।
এ ধরণের ঘটনা মানবচরিত্রের বিশেষ দিকটাই ইঙ্গিত করে।
মানুষের যে স্বাভাবিক ধর্ম তা জাতপাত ভেদে পরিবর্তনীয় নয়,সব মানুষেরই প্রাকৃতিক ধর্ম প্রায় এক।হয় সে সাধু,মহাপুরুষ, নয় সে নানা দোষে দুষ্ট মানুষ।
ডায়না সাধারণ মানুষদের জন্য কাজ করতেন,বিষয়টা আমার ভালো লাগতো।
আমি যতদূর জানি প্রিয়াঙ্কা গান্ধী রাজনীতি করেন না।এই একটি বিষয়ের জন্য তিনি আমার চোখে সেরা।
এই তিনজন নারী বিষয়ে আমি ভাবি মাঝে মাঝে।এজন্য ভাবি তাঁরা রূপে গুণে সেরা।
আর সাধারণ নারী যারা তাদের অধিকাংশই নিজের অবস্থান সম্পর্কে অসচেতন।( মোটিভেশন প্রয়োজন)
ফিল্মের বা নাটকের নারীদের নিয়ে আমি ভাবি না।
আমি ভাবি নারীদের অধিকার বিষয়ে কাজ করেন যারা তাদের নিয়ে।নানা ধরনের অভিজ্ঞতা আছে ঝুলিতে আমার।
আসলে আমরা কাজ করি নাকি কাজ দেখাই?
কেন কোনও পরিবর্তন নেই কোথাও?
--২৩/০৫/২০১৯
বিষয়শ্রেণী: প্রবন্ধ
ব্লগটি ৬২ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ২৪/০৫/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • ইন্দিরা গান্ধী আমাদের দেশের জন্য যা করেছেন তা অতুলনীয়।
  • খুব সুন্দর বলেছেন।আসলে বর্তমানে কিছু নারীবাদীদের মতামত এমন যে,"কি যে চাই তাই বুঝিনা"
 
Quantcast