www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

হর ও লব

হর ও লবঃ
----
**
কুমিল্লা ল্যাবোরেটরি হাই স্কুলে পড়ি।এটা বলতে দ্বিধা নেই আমার যে আসলেই কুমিল্লার কোনও কোনও এলাকায় "ও ো - কে উ ু উচ্চারণ করা হয়।আমাদের আব্দুল খালেক স্যার বলতেন, " বলতু তুমার নাম কি?"
কানে খট করে লাগতো কারণ আমি সদ্য দিনাজপুর থেকে এসেছি এবং ওখানেই আমি "তোমার,তোমাদের,
ওখানে" এসব শব্দ উচ্চারণ ঠিকমতো শিখেছি- তখনও সিলেটি ভাষার সাথে এতোটা সখ্য আমার হয়নি।
আব্দুল মান্নান স্যার ক্লাসে এলেই আমার দিকে তাকিয়ে হেসে হেসে বলতেন," কিতা রেবা খাইছ উইছনি।"
আমার কেমন যেন লজ্জা হতো,কারণ টিভিতেও "যদি কিছু মনে না করেন " বা অন্যান্য ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে সিলেটি ভাষাকে কেন্দ্র করে কৌতুকাভিনয় হতো।বিষয়টা ভালো লাগতো না।
এখানে একটু বলে রাখি জনাব ফজলে লোহানী সম্পূর্ণ ভিন্ন আদলে" যদি কিছু মনে না করেন" অনুষ্ঠানটি টিভিতে প্রথম সফল ও জনপ্রিয় একটি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান হিসেবে চালু করেন।হানিফ সংকেত এবং আরেকজন ছিলেন লালুর ভূমিকায় যিনি অভিনয় করতেন,নাম মনে নেই- ওই ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে কৌতুক পরিবেশন করতেন।হানিফ সংকেত অসাধারণ কৌতুক পরিবেশন করতেন- ফজলে লোহানীর মৃত্যুর পর হানিফ সংকেত কিছুদিন" যদি কিছু মনে না করেন" পরিচালনা করেন,এরপর আরেকটি নামে কিছুদিন চালিয়ে তারপর শুরু করেন ইত্যাদি- যদি কিছু মনে না করেন এর আদলে,যা এখনও জনপ্রিয়তার শীর্ষে।যোগ্য উত্তরসূরী তিনি।
**
স্কুলের পাশেই বি,এড কলেজ।প্রশিক্ষণার্থীরা প্র্যাকটিস টিচিং এ আমাদের স্কুলে আসতেন।
আমার ছোট বোন রেবা ( শিরিন আক্তার) আবার যে কোনও মানুষের কণ্ঠস্বর হুবহু নকল করতে পারতো,স্কুল শেষে বাসায় ফিরে তার প্রথম কাজ ছিলো স্কুলে ঘটে যাওয়া যাবতীয় বিষয় দক্ষতার সাথে অভিনয় করে দেখানো।
রেবার বান্ধবী নীপা ছিলো বি,এড কলেজের প্রিন্সিপালের মেয়ে- এখন প্রতিষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ ডাক্তার।
নীপা ভগ্নাংশের অংক কষছে।প্রশিক্ষণার্থী স্যার সিলেটের,নীপাদের বাড়ি সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে।
উনি এসে তার পাশে দাড়িয়ে বললেন," ওবা তুমি ইতা কিতা করলায়,ষোলো বাগের চাইর ওগোরে কাটিয়া কুটিয়া ছোটো করলায় না খেনে"।
ক্লাস জুড়ে হাসির রোল,অভিনয় দেখে বাসায় আমাদের হাসির রোল।
**
ভগ্নাংশ হর ও লব নামে দুটো অংশে পরিচিত।
হর লব সমান হলে পূর্ণ সংখ্যা,হর বড় হলে প্রকৃত ভগ্নাংশ,লব বড় হলে অপ্রকৃত ভগ্নাংশ।হর =দিভাজক,ভাজক বা বিভাজক অংক, লব =বিভাজ্য অংক, সংখ্যাপাতকারক।
সাধারণ ভাবে গণিতের ক্ষেত্রে এই আমি চিনি ও জানি।
হর ও লব সম্পর্কে ওই স্কুলেরই এক স্যার বলেছিলেন হর ও লব ভগ্নাংশের দুই ছেলে,হরের পিঠে লব থাকে,অর্থাৎ বড় ভাই যেমন ছোট ভাইকে টেনে নেয় এমন,তখন বিশ্বাস হয়েছিলো বটে,এখন অন্য অর্থ খুঁজতে মন চায়।
**
হর বিশেষ্য পদ হলে - সংহার কর্তা,শিব,রুদ্র।বিশেষণে -সংহার কারী,হরণ কারী,নাশক।
লব বিশেষ্য পদ- রামের পুত্র,বিন্দু,খুব অল্প।
( অনলাইন ডিকশনারি)
**
বঙ্গীয় শব্দার্থকোষ অনুযায়ী হর ও লবের ক্রিয়াভিত্তিক ব্যাখ্যা-
"হর"
হ= হ্- অন করে যে,হর।
হ বর্ণটির অর্থ হওয়ন।
র বর্ণটির অর্থ রহন।
তাহলে
হর= হওয়ন রহে যাহাতে।
অস্তিত্বমাত্রই হর।
একটি হর= হর- এক= হরেক।
অণু অস্তিত্ব থেকে শ্রেষ্ট অস্তিত্ব - সবই হর।
হর যখন অন হয় তখন হরণ হয়,
হরণ যে হয় তার হার হয়,
হার এর আশ্রয় হলো আহারে,
হার এর প্রকৃষ্ট রূপ প্রহারে,
হার বিশেষ ভাবে গমন করলে হয় বিহার।
------
"লব"
ল= ল্- অন করে যে,লালন-লয়ন-কারী,লালী।
লালন মানে লাই দেয়া।
কাউকে তার কাঙ্ক্ষিত বিষয়ের দিকে যেতে লাই (সমর্থন,সাহায্য) দেয়া হলো লালন।
লয়ন হলো লয়-অন বা বিনাশ।
লালনের অভাবে লয়ন যেমন হতে পারে তেমনি অতিলালনেও লয়ন হতে পারে।
সুতরাং
ল বর্ণের অর্থ, ল= লালন-লয়ন-কারী,লালক- লয়ক।
তাহলে দেখা যাচ্ছে যথাযথ লালনেই কেবল ভারসাম্য রক্ষা হয়।
লব= লালককে বহন করে যে,লালন বাহিত যাহাতে।
(ব বর্ণে বহন বোঝায়)
রামচন্দ্র ও সীতার পুত্র।
এই হলো হর ও লবের ক্রিয়াভিত্তিক বিশ্লেষণ।
( কৃতজ্ঞতাঃ বঙ্গীয় শব্দার্থকোষ)
**
হর এর বহুবিধ ব্যবহার আছে,লব এর?
হর এবং লব সম্পর্কে আসলেই খুব কম জানা হলো আমার।
২৯/০৪/২০১৯
বিষয়শ্রেণী: প্রবন্ধ
ব্লগটি ২০ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৮/০৫/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast