www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

সৌন্দর্য নাকি বর্ধন

রাজধানীর এয়ারপোর্ট রোডে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের জন্য আবারও শতাধিক বড় বড় বৃক্ষ কাটা হচ্ছে। সড়ক বিভাগের অনুরোধে বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে টেন্ডারের মাধ্যমে এসব গাছ কাটা শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে অন্তত ৩০টি দেশি-বিদেশি বৃক্ষ কেটে ফেলা হয়েছে।

পরিবেশ ও দেশিয় ঐতিহ্যের কথা চিন্তা না করে প্রকল্পের স্বার্থে গাছ কেটে ফেলায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উদ্ভিদবিদ ও নগরপরিকল্পনাবিদরা।

এসব বৃক্ষ যেমন অক্সিজেন দিতো, তেমনি ছায়া দিতো পথচারীদের। সড়কমন্ত্রীর নির্দেশ উপক্ষো করে, পরিবেশ ও দেশিয় ঐতিহ্যের কথা চিন্তা না করে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের নামে বড় এই গাছগুলো কেটে ফেলা হচ্ছে।

সড়ক বিভাগের অনুরোধে টেন্ডারের মাধ্যমে বন বিভাগ এসব বৃক্ষ কেটে ফেলার অনুমতি দিয়েছে। এয়ারপোর্ট রোডের পদ্মা ওয়েল গেট থেকে কাওলা ফুট ওভার ব্রিজ পর্যন্ত অন্তত: ১৪০টি বৃক্ষ কাটার কাজ চলছে।

১০ বছর ধরে বিজ্ঞাপনের অর্থ উত্তোলনের শর্তে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে এয়ারপোর্ট রোডে নিজস্ব অর্থায়নে সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ করছে ভিনাইল ওয়ার্ল্ড গ্রুপ। ইট-পাথরের নানান স্থাপনার ফাঁকে বিদেশি বনসাইসহ সৌন্দর্যবর্ধক দেশি-বিদেশি গাছ রোপন করছে তারা।

এ প্রকল্পের জন্য সড়কে থাকা বৃক্ষ কেটে ফেলায় প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এয়ারপোর্ট রোডের নিরাপত্তা ও সৌন্দর্যবর্ধন কাজের প্রস্তাব গতমাসে ফিরিয়ে দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

তারপরও মৃতপ্রায় ও বিবর্ণ গাছের কথা বলে সবুজ সতেজ বৃক্ষগুলো কেটে ফেলার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের বিচার দাবি করেন নগর পরিকল্পনাবিদ ইকবাল হাবিব।

দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পরও দেশের এই প্রধান সড়ক এবং সড়কের একটু দূরেই বিদেশি ঐতিহ্যের বনসাই রেখে দেয়ায় চিন্তিত পরিবেশবাদীরা।-চ্যানেল আই নিউজ
বিষয়শ্রেণী: সমসাময়িক
ব্লগটি ৩৮৪ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৪/১১/২০১৭

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast