www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

মা আমার মূল ধন

( রিষ্টপুষ্ট কষ্টখানা যেই জাগে, ঘুম ভেঙ্গে যায় মাঝ রাতে
হাত ইশারায় ডাকে ছায়া রোজ কথা হয় কার সাথে
মা আমার নেই কাছে নেই.... নেই গো যাদের,
তাদেরও বুঝি মন কাঁদে?)

মা আমার সেই মা, আমার বাঁকহীন পিতার সংসারে আমার রানী মা। বাশের খুঁটি তাল পাতার ছাউনির মহলে আমাকে জন্ম দিয়ে, অনাহারে রুগ্ন শরীরের স্তন পান করিয়ে এনেছে আমার কৈশর। দেখেছি মায়ের মলিন মুখে তৃষ্ণার্ত হাসি। দিয়েছে সু মহান সমুদ্রের থেকেও গভীর স্নেহের পরশ। ঘরময় ঘামের গন্ধ এক দূর্বার অর্থের জানান দিয়ে যেত। যেন দশোহস্তে মা আমার গুছিয়েছে ছোট ঘর। উৎসবে গায়ে যার আচঁল বিহীন শাড়ী তবু সন্তানকে পরিয়েছে নতুন জামা জুতো। দু মুঠো চালের ভাত তার রাজ পুত্রের মুখে তুলে দিয়ে, মা আমার ভাতের মার খেয়ে কাটিয়েছে অসংখ্য দিন। ধন্য আমার মা। রক্ত মাংসের শরীর আর যে পারছে না, গড়তে হবেই সোনার সংসার হাল যে ছাড়ছে না’। পরের পশু বলগা পোষে মিটায় গাভীর দুধ, বুকের জমিন নিত্য চষে বারায় রঙন সুখ। মা কখন ঘুমোতে যায় ঠিক ধরতে পারিনি কখনো। কোন পাখি সূর্য্য ওঠার আগে কোন গাছে বসে কি রকম ডাকে এর অনেক গল্প শুনিয়েছে মা। তা হলেই বুঝছেন কখন ঘুম থেকে জাগে আমার এই সোনার হরীণ মা। যে জন বুকের পাঁজরে দুঃখ পোষে, ভাবেন সুখের পায়রা, সে জন হল মা। মায়ের চোখে আগন্তুক স্বপ্নরা খেলা করে ফোটা ফোটা অশ্রুর ভেতর। তাই দেখে বেড়ে যায় মায়ের মুখে মশ্রীণ হাসি ফোটানোর প্রয়াস। মা যেন সৃষ্টির প্রকৃত সুন্দরের বিস্ময়। এই মায়ের কোলে দেখেছি কল্পিত স্বর্গের বাস্তব জ্যোতি। তাই মা বর্তমান বা অতীত মাই আমার স্বর্গ । এখন তার সংসারে অগনিত উৎসব আয়েসের ভোজন বেরেই চলে। তবু মা আমার খাবার নিয়ে খালি পেটে বসে থাকে খোকা এলে মুখে তুলে খাওয়াবে। ধন্য সকল মায়েরা।
উৎস্বর্গ
সকল মায়েদের
বিষয়শ্রেণী: গল্প
ব্লগটি ৯৯৮ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৮/০৫/২০১৬

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast