www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

একটা গল্প

হ্যালো ফ্রেন্ডস চলুন একটা গল্প বলি , আজ আবার শুরু হল বৃষ্টি জলে মগ্ন শহর, বেরোলেই জল,কাদা। একপ্রকার গৃহবন্দি! তারোপর ডেক্সটপের ইউ.পি.এস টা গেছে দবাখানায়, মনে হচ্ছে মেঘের টুঁটি চেপে কে কেড়ে নিতে চাইছে আমাদের আলাপগুলো, চারিদিক ঘন বৃষ্টির দাপটে পথ,ঘাট জনমানব শূণ্য অগত্যা বেড়িয়ে পড়লাম অনেকটা উদ্দেশ্যবিহীনভাবে, বাস থেকে নামলাম মুষলধারে বৃষ্টি নিয়ে , আমার সতীন ডেক্সটপ মুখ ফিরিয়ে আছে, প্রায় তিনভাগ ভিজেও ঠাহর করতে পারলাম না কোথায় চলেছি ,মোটা বেঁটে সাদা একটা লোক মুখে বিশ্রী মদের গন্ধ ঢুলুঢুলু চোখে দরজা খুলে সামনে দাঁড়াল ইশারায় ঢুকতে বলল আমার তো বুক কাঁপতে শুরু করল, বললাম,"কোথায়"?
লোকটি বিশ্রী হাসিতে ফেটে পড়ল , বলল,"কেন , জাহন্নম"। লোকটি আমার খুব কাছে এগিয়ে আসছে আমি কার্ণিশের খুব কাছে চলে এসেছি হঠাৎ ফোনে রিং হলে আমি আসছি প্লিজ বলে হাফ ছেড়ে বাঁচলাম মনে হল কারেন্ট এল দরজার পাশে মনে হল দুটি নারীমূর্তি আড়াল করে রয়েছে, আমি যে পথে এসেছিলাম ভুলেও মনে করতে পারছি না এদিক সেদিক পাগলের মত ছোটাছুটি করতে থাকলাম খাণিক্ষন, কোথাও কোন জনপ্রাণীর আঁচ পেলাম না।অগত্যা, যেন গোলক ধাঁ ধাঁয় ফেলে কেউ দারুন মজা দেখছে, হাত,পা ততক্ষনে হিম হয়ে এসেছে বৃষ্টি কমে এসেছে ওগো মেঘ একটু তো হাসো এই নাও আমার আবেগঘন মুহূর্তের মালা নানা রঙে গেঁথে তোমায় দিলাম , তুমি সুন্দর হও, হাসোতো খলবলিয়ে। বৃষ্টি ধরে এলে চতুর্দিকে গাড়ীর আওয়াজ, একজনকে সময় জিজ্ঞাসা করতে সে বলল," ননস্পেস টাইম, অর্থাৎ ভায়োলেন্স আর এক্সজিস্টেন্সের ছদ্ম লড়াই, বুঝলেন না"? ছেলেটি মুখে ধ্যৎত্তুরি গোছের শব্দ করে চলে গেল, ভদ্রলোক নামী কবি অল ইন্ডিয়া রাইটার ফাউন্ডেশন থেকে সসম্মাণের স্বীকৃতিপ্রাপ্ত। আমার কবিতা দেখে মুখ বেকিয়ে বললেন , শিশু ! ছেলেটির উদ্দেশ্যে বলতে যেয়েও থেমে গেলাম কেমন করে বলব প্রসূণ স্যারের পেছন থেকে দেওয়া ট্রফিটার কথা কেউ তো জানলোও না! ওরা সকলেই কবি, লেখক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত!কত মান সম্মাণ পাড়ায়, শহরে কত হাঁক ডাক কেমন করে বলব ? ওদের নামে রাস্তা, ঘাট পুরষ্কার, সম্মাণ রাস্তায় বেরুলে সকলে কতভাবে মান্যতা জানায়, গাড়ী এসে জোর করে তুলে নেয় , ছুটে এসে জানায় কোন লেখাটা খুব ভাল লেগেছে , সে সব অন্যরকম ব্যাপার স্যাপার। আসলে বুঝতে পারিনি ট্যাকের জোর না থাকলে স্বীকৃতি পাওয়া যায় না কারণ লিখলেই সবাই কবি হয় না অল ইন্ডিয়ার স্বীকৃতি থাকা চাই। রীতার ফোন এল জানাল ওর ম্যাগাজিন, " বনানী" র জন্য প্রচুর এ্যাড পেয়েছে পাড়ার দোকান থেকে একটুও কষ্ট করতে হয় নি, মিথ্যে বললাম আমিও।কি করে বলব নিজের এলাকায় একটি কানা কড়িও সহযোগিতা পেলাম না। কি কারণ হতে পারে ? কেন ? স্থানীয় পুলিশ ফাইলে কোন কমপ্লেন থাকার কথা নয়, অথচ বিস্তর অব্যাবস্থায় খাবি খাচ্ছি, সমুখে গৌরীয় মঠের ভাবধারায় উদ্বুদ্ধ প্রান্তের ঠেকনায় আটক সব চালক রাহু কেতুর ভয়ে প্রণামী ঢালতে তৎপর, সমুখে মিছিলে আমার রং ধরা যাচ্ছে না, পড়ণের উত্তরীয়ে মহাভক্তির শিলমোহর নেই, আমার সময় অজস্র পথ বেঁকে চলে গেছে অন্য প্রান্তে, অন্য জনে, সেখানে সুন্দর সকালে লেগে গেছে বরণের মহা ধূম আমায় ঘুম দিয়ে উঠে গেছে কেউ।এক্ষনে আমার চেতনা স্পর্শ করল তার পার্থক্য। এবার টিপটিপ বৃষ্টি, দাঁড়িয়ে আছি ঠায় কোন গাড়ী নেই আমার জন্য রাস্তা প্রায় ফাঁকা কে একজন আমাকে লক্ষ্য করছে বোধয় ফলো, কে জানে কার কি উদ্দেশ্য হঠাৎ মনে হল কে আমায় ব্রতী বলে ডেকে উঠল,আমার অন্তরত্মা চিৎকার করে উঠল, " বিশ্বাস করুন আমি ব্রতী হতে চাই নি শুধু একটা নম্বরের মধ্যে আমায় আটকে দেবেন না প্লিজ,"নেমে আসছে অন্ধকার,জানি আমার ভাষা আরও সর্পিল হওয়া উচিত জিহ্বা আরও ক্ষুরধার,কিন্তু চতুর্দিক আমার সর্বত্র ফিকে হয়ে আসছে গন্তব্যের দিক আর অসংখ্য গাড়ীর আওয়াজ সৃষ্ট ছত্রাকের গোলক প্রশস্ত হচ্ছে" ওংঁ "মন্ত্রে।
বিষয়শ্রেণী: কৌতুক
ব্লগটি ৭৪১ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৮/০৮/২০১৭

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • ভাল লাগল
  • আনাস খান ১০/০৩/২০১৮
    Nice
  • রুনা লায়লা ১৭/০৯/২০১৭
    ঝাপসায় বন্যার জলের মতো ভেসে গেলাম।কোথায় পৌঁছলাম ঠিক ঠাউর করতে পারছিনা। মনে হচ্ছে সবকিছু অস্পষ্ট। ধন্যবাদ প্রিয় কবি মল্লিকা রায়।
  • মল্লিকা রায় ১৬/০৯/২০১৭
    বেশ আপনাদের বোঝাবার দায়ভার গ্রহণ করলাম
    ঠিক কোন জায়গাটা বুঝতে পারেন নি বলুন ......................
    যাস্ট এ ফর Apple.
    বি ফর Ball .
    সি ফর Cat এই তো লজ্জা কি শ্লেট পেন্সিল নিয়ে আসুন।
  • কিছুই বুঝিনি
    • মল্লিকা রায় ১৬/০৯/২০১৭
      N ফর নকশা
      M ফর মকশো । হল ?
 
Quantcast