www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

গোপলার কথা - ৭৩

আমার দেশ
----------

একবার মনে হয় আমার দেশটা খুব ভালো। আবার মনে হয় খুব খারাপ।
স্কুটি নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে দেখি আমার মাথায় হেলমেট নেই। ভাবলাম কি আর হবে? পকেটে তো টাকা আছে। ঠিক তাই হল। রাস্তায় আটকালো। তো পকেট থেকে টাকা দিয়ে থুয়ে ঠিক বেরিয়ে গেলাম।
ঘর থেকে বেরিয়েই হেলমেটের কথা মনে পড়েছিল একেবারে ঘরের সামনে, তাও হেলমেট আনতে আমি আর ঘুরে বাড়ি ফিরে যাই নি। কেন না আমি জানি কিছু হবে না, টাকা আছে। রাস্তায় তা নেওয়ার জন্য অনেক হাতও আছে। তাই যে কোন বেআইনি আইন করতে কোন সমস্যা হবে না। এই তো আমার দেশ।
আমার কাকা বাড়ি বানাল নিজের জায়গা ছাড়িয়ে দু তিন ফুট চাপিয়ে। পাশের লোক সেই জায়গা কেনার সময় সেটা ধরে ফেলল। আইনের সব লোকজন এল। মাপজোক হল। কিন্তু কাকার কিছু হল না। একটু বেশি টাকা লাগল। এবং কাকার বাড়িটা সেভাবেই থাকল। বেআইনি আইন হয়ে গেল। আর সেই বাড়ির পাশে যারা অভিযোগ করেছিল তারা নিজেদের ঝুপড়ি মত বাড়িতে মনের সুখে কীর্তন করে আজও। আর অদৃষ্টের দিকে তাকিয়ে বিন্দাস ঘুমিয়ে পড়ে। কি আর করবে? এই তো আমার দেশ।
এক অফিসে কাজের বিনিময়ে টাকার লেনদেন হচ্ছিল। আমাদের পাশের বাড়ির রামুকাকা এক সরকারী পোস্টার পড়ল। তাতে লেখা ছিল 'এখানে সরকারী কোন কাজে কোন কিছু বেআইনি দেখলে অভিযোগ জানান। আপনার নাম গোপন থাকবে।' তো রামুকাকা সেখানে ওই অফিসের নামে অভিযোগ জানিয়ে দিল। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত হয়েছে কি হয় নি রামুকাকা জানে না। কিন্তু তার পর থেকে লোকাল পার্টি, পাড়ার দাদা, বাজার হাট এবং নানান অফিসিয়েল কাজে রামুদাদা লাগাতার হুমকি পায়, হ্যারাসম্যান্ট সহ্য করে, নানানভাবে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে। গোপন কথাটি গোপন থাকে না। আর সেই অফিস সেই আগের মত। এই আমার দেশ।
ওপেন সিক্রেট বলে একটা আপ্ত বাক্য আছে। আমার দেশে তা সবচেয়ে বেশি পালিত। সবাই জানে কিন্তু বলা বারণ। আবার যে সে সম্বন্ধে মুখ ফসকে বলে ফেলবে তার তদন্ত হবে সবার আগে। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তাকে আদৌও কোনদিন ডাকা হবে কি না তা ভগবান জানেন? এই ভয় ও ভাবনায় অনেকেই অভিযোগ জানায় না। সাধারণ জনগণ মেনে নেওয়া ছাড়া অন্য কোন পথ দেখতে পায় না।
আমাদের দেশে বিড়ি সিগারেট মদ ইত্যাদি বিক্রির ঢালাও লাইসেন্স, রাস্তায় এক পা দু পা এগিয়ে গেলেই সারি সারি দোকান। আবার এসব না খাওয়ার জন্য চারিদিকে বড় বড় বিজ্ঞাপন। আবার এসব খেয়ে রোগ ব্যধি বাঁধালে তার জন্য ফ্রি চিকিৎসার হাসপাতাল। সরকার একদিকে এই বিড়ি সিগারেট মদ তৈরি ও বিক্রির জন্য লাইসেন্স দিয়ে রাজস্ব আদায় করছে আবার উল্টোদিকে সেই রাজস্ব দিয়ে বড় বড় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে, হাসপাতাল ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করছে। ভেবে দেখলে দেখা যাবে রাজস্ব থেকে আয়ের চেয়ে এইসব খরচ অনেক বেশি। সাধারণ মানুষের তাহলে কোনটা মেনে চলা উচিত?
যে একবার থানায় গেছে কিংবা একবার কোর্টে গেছে সে জানে চক্কর কাকে বলে? আসল সত্য কি? কোথাকার জল কোথায় গড়িয়ে পড়ে তা কেউ জানতে পারে না। তা এই হল আমার দেশ।
যে একবার ড্রাইভিং লাইসেন্স করাতে গেছে সে জানে কিভাবে কে আগে কোথা দিয়ে লাইসেন্স সহজে পায় কিংবা অনেক দেরি হয়। বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে কোথায় কোথায় দৌড়াদৌড়ি করতে হয়। কার ঘরে আগে লাইন আসে। টেলিফোন লাইন নিতে কিভাবে লাইন লাগাতে হয়। ঘুরতে ঘুরতে কার পায়ের চামড়া কিভাবে চলা বন্ধ করছে তা কেবল ভুক্তভোগীরা জানে। ফলে ওপেন সিক্রেট বলা বারণ। যে বলছে তার ঘরেই প্রথম হানা হবে তদন্তের। সেই বিষয়ে কিছু যদি না পায় তাহলে অন্য বিষয় দেখা হবেই হবে। এবং আপনাকে দোষী করা হবে।
আইন এবং আইনের রক্ষক একবার যখন আপনাকে দাঁড় করানোর জন্য হাত তুলেছে তখন কোন না কোন দোষ খুঁজে বের করে আপনার সঙ্গে ভিন্ন পথে রফা করে কিংবা আইনি পথে আপনাকে নাকে দড়ি দিয়ে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তবেই ছাড়া হবে। না হলে নয়। কেন না, কোন না কোন দোষ ত্রুটি আমার থাকে আপনারও থাকে কিংবা সিস্টেমের থাকে। পরিচ্ছন্ন কেউ না। তাই। এই সবই বৈধ। বুঝলেন? এই আমার দেশ।
বিষয়শ্রেণী: সমসাময়িক
ব্লগটি ২৯ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৭/০৮/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • সাইদুর রহমান ০৯/০৮/২০১৯
    খুব সুন্দর।
  • বেশ লাগ্লো
 
Quantcast