www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

দান

স্নেহলতা ইহলোকের মায়া ত্যাগ করে পরলোকে গমন(দিব্যান্ লোকান স গচ্চতু) করেছেন আজ দশদিন হল।মায়া ত্যাগের পূর্বে চার সন্তান,নাতি,নাতনি সহ আত্মিয়_স্বজন,পরিজন ও শুভাকাঙ্কি রেখে গেছেন।নিয়ে গেছেন নিজ কর্মফল,দীর্ঘশ্বাস ও অতৃপ্তি|
কুলপুরোহিতের পাতি আনুযায়ি চার ভাই চারদিক হতে ভালটাই তুলে আনছেন,মাতৃকার্যে|
শয্যার শিতলপাটি থেকে বস্ত্র,অন্যদান দ্রব্য হতে পাদুকা ইত্যাদি ইত্যাদি।মায়ের শেষকার্য্ বলে কথা।আফসোস জীবিত আবস্তায় যদি স্নেহলতা তার বিন্দু পরিমান স্বাধ,রুপ,রং ও গন্ধ আচ্ছাদন করতেন হয়তোবা?
ছেলের বউরা,আত্মিয়রা এখন যেমন সুরে সুরে গুণকির্তন করছে যদি তাল ছেড়া ভাবেও স্নেহলতা নিজ কর্ণে শ্রবন করতেন হয়তোবা?
ছেলেদের মা,মা ক্রন্দনে উপস্তিত সকল হতে যে স্নেহধারা নিঃস্বরিত হচ্ছ তথাধিক মাতৃসুধা নিঃস্বরিত হতো যদি স্নহলতা ছেলেদের মূখে একবার মা ডাক শুনতেন,হয়তোবা?
আজ রন্ধনশালায় যে আয়োজন তার কিয়দাংশ যদি জীবিত আবস্তায় রান্না করেও মূখে দিতেন,হয়তোবা দীর্ঘশ্বাস আর অতৃপ্তি থাকতো'না?।
শ্রাদ্ধবাসরে উপস্তিত সকলেই এই দান,কর্মযঞ্জ দেখে প্রসংশায় পঞ্চমূখ,মাতৃকার্য এমনই হওয়া চাই।
যদিও স্নেহলতা এই আয়োজনের মহারাণী কি'না ছেলেরা জানে না॥
বিষয়শ্রেণী: গল্প
ব্লগটি ৫৭৩ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ২১/০৪/২০১৭

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

 
Quantcast