www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

ইতিহাসে একজন নারী হওয়ার ভয়ঙ্কর বাস্তবতা

পুরুষদের গোষ্ঠীর দ্বারা প্রথম থেকেই শাসিত হয়েছে নারী । মানব ইতিহাসের প্রতিটি পর্যায়ে নারীরা মার্জিনে রয়েছেন, দ্বিতীয় শ্রেণী জীবনের মাধ্যমে সংগ্রাম করছেন।
এটা ঠিক এমন যে নারীরা ভোট দিতে পারে না বা তারা সমান বেতন পায় না। নারী জীবন একটি ভয়ঙ্কর গল্পের মত ছিল। আমাদের ইতিহাস জুড়ে, দৈনন্দিন জীবনের অভিজ্ঞতার সাথে ভরা ছিল যে একজন নারী হয়ে উঠছে একটি ভয়ঙ্কর দুঃস্বপ্ন।




১)মেয়ে নবজাতকেরা নিয়মিতভাবে মারা যায়, তাদের মরতে ছেড়ে দেয় বা গ্রহন করেনা ।।
প্রাচীন এথেন্সে, একটি দম্পতির মরুভূমিতে একটি নবজাতক মেয়েকে নিয়ে যাওয়া এবং মরতে যাওয়ার জন্য তাকে ছেড়ে আসা এটি খুবই সাধারণ ছিল-
একটি মেয়ে শিশুকে "প্রকাশ্যে" বলা যে সেটি তার সন্তান এটি একটি লজ্জার কাজ একজন গ্রীক লেখক লিখেছিলেন, "সবাই দরিদ্র হলেও, একটি ছেলেকে উত্থাপন করে"
, কিন্তু তিনি ধনী হলেই একটি মেয়েকে প্রকাশ করেন। "

রোমে, এটি ছিল সাধারণ, বিশেষ করে দরিদ্র পরিবারের মধ্যে। তার স্ত্রীর গর্ভাবস্থার সম্পর্কে একটি নিম্ন-বর্গ রোমান বললো তার কণ্যা সন্তান যদি থাকে , এটা খুব খারাপ লাগবে , কারন তারা খুব গরীব , আর কণ্যা সন্তান তাদের কাছে ভার সরুপ লেখার রেকর্ড আছে তিনি বলেন, "একটি কন্যা খুবই ভার বহনকারী, এবং আমরা কেবল গরীব নই আমাদের এতো টাকা নেই,"
তিনি তাকে বলেন। "যদি আপনি একটি মেয়ে সহ্য করা উচিত মনে না করেন, আমাদের তাকে হত্যা করতে হবে।"
এমনকি মিসরেও যেখানে নারীদের তুলনামূলকভাবে সমান অধিকার প্রদান করতো। দরিদ্ররা প্রায়ই মেয়ে বাচ্চা মেরে ফেলতো । এবং কি মরার জন্য রেখে আসতো ।"আমি ফিরে আসার পূর্বে যদি আমার কোন বাচ্চা হয় " এক চিঠিতে লেখা হয়েছে যে একজন মিশরীয় লোক তার স্ত্রীকে লিখেছে,
"যদি ছেলে হয় তবে তাকে বাঁচিয়ে রেখো ; যদি এটি একটি মেয়ে হয় ,এটি প্রকাশ করো না।
বর্বরতার (আইয়ামে জাহিলিয়াতের যুগ) যুগে আরবেও এমন ইতিহাস আছে , একজন পিতা তার বহু কন্যাশিশুর কবর দিয়েছিলো , তারা
কণ্যা হলে দূর্ভাগ্য ভাবতো। কণ্যা সন্তান মরুভূমির বালিতে পুতে ফেলতো।




২) মহিলাদের কু সময় ।
রোমান দার্শনিক প্লিনি দ্য এল্ডার লিখেছেন, "এই রাষ্ট্রের এমন একটি মহিলার দৃষ্টিভঙ্গিতে, মায়ের দুধ খরা হয়ে যাবে।" তিনি মনে করেন মহিলাদের উপর মাংসপেশি যদি দেখে সবকিছু ধ্বংস হয়ে যেতে পারে, এমনকি বলে, "মৌমাছিদের একটি ঝাঁক , অবিলম্বে মারা যাবে। "শুধু তার চাওয়ার কারনে ।
এটা একটা অভিশপ্ত সময় ।আর এটা খারাপ আর নাপাক৷
মিশরে, এমন নারীকে একটি বিশেষ ঘরে রাখা হতো ,যেখানে পুরুষদের প্রবেশ বিচ্ছিন্ন ছিলো ,যতক্ষণ না তাদের মাসিক চক্র অতিবাহিত
হওয়া বন্ধ হয়।এই সময় কেই বলা হয় কু সময়। তারা তাকে আলাদা ঘরে রেখে দিতো । - তারা শুধুমাত্র এটি করতো না ,
ইস্রায়েলীয়রা এমন আইন করে সামাজিক প্রথা চালু করে এই সময়কালেও কোন নারীকে স্পর্শ করবে না- অথবা সেই বিষয়টির জন্য কেউ (পুরুষ) তাকে স্পর্শ করবে না, যা সে স্পর্শ করেছে সেই জিনিসপত্র কেউ ধরবে না।
তিনি লিখেছিলেন, "যা কিছুতে সে বসে আছে", যা সে ধরেছে ,যা সে ব্যবহার করেছে তারা লিখেছিল, তা অশুচি হবে।"
পাপুয়া নিউ গিনি এর নেটিভ রা এটি সর্বাধিক বেশি গ্রহণ করে । যদি একজন পুরুষ একটি ঋতুস্রাব নারীকে স্পর্শ করে, তবে তারা বিশ্বাস করে যে, "তার রক্তকে মেরে ফেলবে যাতে তা কালো হয়ে যায়,
তারা বিচলিত হয়ে ওঠে এবং তারা ভাবে সে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে যায়।"তার মরনের কারন হল স্পর্শ করা।।।



৩) কুমারীত্ব হারানোর অপরাধে মৃত্যু দন্ড দেয়া।
এথেন্সে, যদি একজন মানুষ জানতে পারে যে তার অবিবাহিত মেয়ে একটি মানুষ সঙ্গে শুয়েছে , তাকে আইনত দাস হিসেবে তাকে বিক্রি করতে পারে।
সামুয়ারা নিশ্চিত করেছিল যে তাদের স্ত্রী কুমারী ছিল- এবং সবাই জানে যে। সামোনের বিবাহের সময়, গোত্রের প্রধান নিজে দম্পতির হেমম্যানকে তার আঙ্গুল দিয়ে একটি ভিড়ের সামনে হস্তক্ষেপ করে প্রমাণ করে যে সে বিশুদ্ধ ছিল।
রোমে, একটি কাহিনী আছে ,দেবী Vesta 30 বছর আগে তার কুমারীত্ব হারিয়েছিলো ,তাকে জীবিত সমাহিত করা হয়েছিল।
এবং প্রাচীন ইস্রায়েলে, যে কোন মহিলার বিয়ের আগে তার কুমারীত্ব হারিয়ে ফেলে তাকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হতো পাথর ছুঁড়ে ফেলা হতো।



৪)পুরুষদের দ্বারা যৌন সামগ্রী হিসেবে প্রত্যাশিত ছিল নারীরা।
রোমে ক্রীতদাসরা তাদের কর্মের অংশ হিসাবে পুরুষদের নিকট যৌনসামগ্রী হিসেবেই প্রত্যাশিত ছিল।

আপনি দাসের সাথে যৌন সম্পর্ক করতে পারেন
আপনার আচরণের জন্য তারা কষ্ট পেতে পারেন,
একমাত্র উপায় যদি সে আপনার মালিকানাধীন হয় এবং আপনি প্রথম জিজ্ঞাসা না করেই যৌনসামগ্রী হিসেবে ব্যবহার করতে পারে।
। এমনকি তারপর, এটি ধর্ষণ বলে মনে করা হবে না- এটি সম্পত্তি ক্ষতি হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ। আপনি যেভাবে ইচ্ছা ,যখন ইচ্ছা তার সাথে
যৌন সম্পর্ক করতে পারেন ।কারণ সে দাসত্ব বরন করেছে । এটা ছিলো প্রাচীন নিয়ম ।।।
এটা ঠিক এমন যে কিছু কিছু নারীর সঙ্গে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে , আর সে অভিযোগ নাও দিতে পারে , বা চুপ থাকতে পারে ,।কারন কিছু মূর্খ
লোক সমাজের দোহায় দিয়ে তাদের চুপ করিয়ে রাখে । আর তারা সমাজে লাঞ্চিত অথবা মানুষ কি বলবে কি নজরে দেখবে এই চিন্তা করতে বাধ্য হয়৷ আজকের এই যুগেও এমন হয় ।এটা অনেক লজ্জাজনক যে আমাদের চিন্তা আজো পুরাতন রয়ে গেছে ।।।
এটা শুধুমাত্র পতিতাবৃত্তি করার ক্ষেত্রেই নয় ,সব ক্ষেত্রেই এমন কেন হবে? , যে কেউ ধর্ষণ-করবে আর তার কোন বিচার থাকবে না বা দেখার কেউ থাকবে না। অভিনেত্রীদের উপর দোষারোপ করতে পারেন না, যে তারা কোন যৌন চাহিদা ইচ্ছা জাগানোর মতো অভিনেত্রী হিসাবে কাজ করে ,তাদের উপর বাধ্য করা হয় , একটি মানুষ ইচ্ছা করে পণ্য সামগ্রী হিসাবে গণ্য হতে চায় না ।আপনারা চাহিদা যোগাচ্ছেন , তাই কিছু লোক এসব করাচ্ছে ।।
পুরুষ যারা তাকে আক্রমণ করে, তারা শাসিত করেছিল, যা সহজ ছিল "একটি পরিকল্পিত ঘটনা একটি সুপ্রতিষ্ঠিত ঐতিহ্য অনুযায়ী অভিনয় করার মতো ।
মধ্য যুগে , সেন্ট অগাস্টিন মনে করতেন যে ,,ধর্ষিত নারীরা নিজেদেরকে হত্যা করার দরকার নেই,,,
তিনি বলেন প্রগতিশীল হিসেবে নিজেকে বিবেচনা কর । এমনকি তিনি আরো বলেন ,যদি কেউ ধর্ষণ করে , মহিলাদের বলবো তারা যেনো এটি উপভোগ করে ।।
এই হলো মধ্যযুগের বর্বরতা ।।। আর অধিকার হীনতা , নারীকে পণ্যের সাথে তুলনা করার উদাহরণ ।।।



৫)বিবাহের কণে অপহরণ ।
চীনের কিছু অংশে, ১৯৪০-এর দশক পর্যন্ত লোকেরা বিয়ের কণে অপহরণের মতো অপব্যবহার করেছিল।
জাপানে, ১৯৬৯সালে নববর্ষে অপহরণের সর্বশেষ ঘটনা ঘটেছে।
আয়ারল্যান্ডের ১৮০০এর দশকে নববধূ চুরির একটি ব্যাপক সমস্যা ছিল।
এমনকি বাইবেলও পুরো গ্রামের লোকদের হত্যা করে কুমারী নারীদের স্ত্রী হিসাবে তুলে নেয়ার কথা তুলে ধরেছে।
অপহরণ করা কণে ছাড়া রোমের উন্নতি হবে না এমনকি অস্তিত্ব থাকবে না।এমন বলা হতো ।
সাবেনের নারীদের অপহরণকারীদের সাথে দেশটির কিংবদন্তি শুরু হয় গল্পে রুমুলাস নারীদেরকে অপহরণ করে খুশি হতো বলে লোকে মুখে শুনা যায়৷ ।কারণ তারা এই কাজকে "সম্মানজনক বিবাহের মধ্যে গণ্য করতো ,এই কাজ করার


জন্য তারা নিজেকে যথেষ্ট ভাগ্যবান মনে করতো ।




৬)তাদের সন্তানদের নিজ হাতে হত্যা করতে বাধ্য করা ।
স্পষ্টতই দুর্বল শিশুকে হত্যা করা যেনো এমন কিছু ঘটেনি যা স্পার্টাতে ঘটেছিল। প্রায় প্রত্যেক দেশে, যখন একজন মহিলা একটি বিকৃত সন্তানের জন্ম দেয়, তখন সে শিশুকে তাকে হত্যা করার অনুমতি প্রদান করেছিল। রোমে, এটি আইন ছিল। "একটি
বিকৃত শিশু জন্ম নেয়ার সাথে সাথেই তাকে মেরে ফেলো ।," রোমান আইন বাধ্যতামূলক, " তাকে দ্রুত হত্যা করা হবে।"
যদি একটি রোমান শিশু সাভাবিক অক্ষমতা সঙ্গে জন্ম হয়, মা দুটি পছন্দ ছিল। তিনি এটি লালন পালন করতে পারে বা, আরো প্রায়ই, তিনি তা পরিত্যাগ করতে পারে।
কিছু জায়গায় এই জন্য ভয়ানক ছিল।
ইসরায়েলের উপকণ্ঠে, প্রত্নতাত্ত্বিকরা শহরের শহরতলিতে ১০০ মৃত শিশুর মৃত্যুর সন্ধান পায়।
এটা অনেক ঘটেছে আমরা মারা যাওয়া অবশিষ্ট শিশুদের সঠিক সংখ্যাটি জানি না,
তবে এটি বিশ্বাস করা হয় যে, প্রত্যেক চারজন রোমীয় শিশুদের মধ্যে এটি প্রথম বছরের জীবনের মাধ্যমে এটি তৈরি করেনি।এটি ছিল বহু
বছরের ঘটনা ।।




৭)মহিলাদের কথা বলার অনুমতি ।
প্রাচীন গ্রীস এবং রোমে, নারীদের একটি পুরুষ সহচর ছাড়া বাড়ী ছেড়ে যেতে নিষেধ করা হয়েছিল।
তখন তাদের বাইরে যাওয়ার জন্য অনুমতি ছিলো না কথা বলতে বা পুরুষের সাথে বসতে দেওয়ার অধিকার ছিল না - তাদের কক্ষগুলি থেকে বাইরে যাওয়ার অধিকার ছিলো না।যাতে পুরুষের উপস্থিতিতে পুরুষের সাথে কাজ করতে পারে ।এমন কাজ করতে হতো যেনো ,তারা তাদের(নারীদের) উপর বিরক্ত না হয়।
ডেনমার্কের বর্বর যুগে যেসকল নারীরা ক্রন্দন করে বা যারা খোলাখুলিভাবে তাদের রাগ প্রকাশ করে তাদেরকে একটি যন্ত্রের মধ্যে লক করা হতো , যাকে একটি ছিঁচকে ভাস্কর্য বলা হয়।
এটি একটি কাঠের ধাঁধা যার আকারের একটি বেহালার মতো
যা তার হাত এবং তার মুখে বাঁধা থাকতো ,যাতে রাস্তায় নারীরা উল্টাপাল্টা কথা বলতে রাজি হতো না ।
ইংরেজরা আরও খারাপ ছিল। তারা বেশি কথা বলা নারীকে, বা প্রতিবাদ কারী নারীকে তিক্ততার সাথে দেখতো ,
তীক্ষ্ণ দাঁত দিয়ে একটি ধাতব মাস্ক যা তারা লাগিয়েছিল তাহাদের দেহে গলায়, যা একটি ঘণ্টার মতো সংযুক্ত ছিল-
যেন সবাই নিশ্চিত হয়ে যায় এবং
অভিযোগকারী সাহেবের সাহায্যে এগিয়ে আসে এমন মহিলাটিকে উপহাস করে।



৮) অত্যাচারীত
যদি একটি বিবাহিত মহিলার অন্য পুরুষের সঙ্গে ঘুমাতে দেখা যেতো ,এটা ছিলো তার শেষ দিন৷ একটি রোমান পুরুষ তার স্ত্রীকে অন্য পুরুষের সাথে ধরে ফেলে , তাকে অন্য পুরুষের সাথে বিছানায় ধরে ফেলতো তা হলে তার স্ত্রীকে হত্যা করার অধিকার ছিলো ।।
এমনকি আমেরিকার উপনিবেশবাদী পিউরিটানরাও বাইবেলের দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করেছিল এবং ব্যভিচারীদের হত্যা করার জন্য বৈধভাবে দোষারোপ করেছিল।তারা পরকিয়া কারী বা অবৈধ সম্পর্কে জরিতো মহিলাকে হত্যার আইন চালু রেখেছিলো।
আবার, যদিও, এটি মধ্যযুগীয় পুরুষদের মাঝে ছিল যারা খারাপ জিনিস করেছিল। তারা কেবল তাদের স্ত্রীকে মেরে ফেলার পরেও সন্তুষ্ট ছিলেন না -
তারা তাদের কষ্ট ভোগ করাতে চেয়েছিলেন মধ্যযুগীয় সময়ের মতোই,। তাদের মধ্যে একটি অস্ত্র ছিলো ,
স্তন রিপার , যে তারা মহিলাদের যে বিষয় ছিল ব্যবহৃত - যা ঠিক কি ছিলো ঠিক বলা যায় নি।তবে এটি দিয়ে ভয়ংকর শাস্তি দিতো ।
এটা ছিলো একটি ভয়ঙ্কর নির্যাতন-এবং এটা ব্যভিচার এর চাইতেও বেশি ছিলো এমনকি এর কোন সীমাবদ্ধতা ছিল না।
একটি মহিলার গর্ভপাত করার জন্য আড়ম্বরপূর্ণ দন্ডিত হতে হতো।


৯)নারীদের তাদের স্বামীদের সাথে হত্যা করা হয়েছে ।।
১৯ শতকের শেষের দিকে, ভারতে একজন মহিলার স্বামীর মৃত্যুতে তাকে মৃতদেহের উপর চড়িয়ে বেঁধে এবং মৃত ব্যক্তির সঙ্গে নিজেকে পুড়িয়ে দিতো বলে ইতিহাস আছে ।


১০) মানবতার শুরু থেকেই অবহেলিত তারা
রেকর্ড করা ইতিহাসের আগেও,
খুব প্রাচীনতম বিবাহ অত্যন্ত একতরফা ছিল।
আফ্রিকাতে একটি প্রাগৈতিহাসিক অবশেষের সন্ধানে পুরাতত্ত্ববিদরা দেখেছেন যে পুরুষেরা এক জায়গায় তাদের সমগ্র জীবনযাপন করেছিল- কিন্তু নারীদের প্রত্যেকেরই অন্য কোথাও জন্ম হয়।
এর অর্থ যে এমনকি গুহামানদের একতরফা সম্পর্ক ছিল, তাদের পরিবার যখন তাদের পরিবার পরিত্যাগ করে তখন তাদের নতুন স্ত্রী তাদের বাড়ীতে চলে যায়।
আরো গুরুত্বপূর্ণ, এটি অত্যন্ত সম্ভাব্য যে এই মহিলাদের মূল্যায়ন আসে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, তারা সম্ভবত অন্যান্য পরিবারগোষ্ঠীর মধ্যে তাদের পরিবার থেকে অপহরণ করা হয়েছিল এবং তাদের বন্দীদের বিছানায় টেনে এনেছিল।
ওরা না হয় শিক্ষিতো ছিলো না ।তবে আজো যখন কিছু মানুষ বাস ট্রাকে নারীদের অপমান করে ।আর তাদের পণ্য মনে করে ।
একতরফা ভাবে সব কাজের অপরাধ তাদের কাধে ছেড়ে দেয়৷ ।তখন বলতেই হয় আজো আমরা মানুষ হলাম না ।
বিষয়শ্রেণী: প্রবন্ধ
ব্লগটি ১২৪ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ১৯/০৭/২০১৮

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • আব্দুল হক ২০/০৭/২০১৮
    সত্য লিখেছেন, ধন্যবাদ!ং
  • কোথাও নারীর অধিকার নাই। সবখানে সে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক।
  • জহির রহমান ২০/০৭/২০১৮
    ইসলাম নারীকে সবচেয়ে সম্মানের আসন দিয়েছে, কখনো কখনো পুরুষের চেয়েও বেশি মর্যাদা দিয়েছে। বর্বরতা থেকে মুক্ত করেছে।
    • ঠিক বলেছেন৷ ১০০% সত্যি।।
      ধন্যবাদ প্রিয় কবি।।সুন্দর মন্তব্যে করার জন্য৷
 
Quantcast