www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

ক্ষণিকের অতিথি

আমার কিছু ইমপ্রুভ অনার্স পরীক্ষা দিতে হয়েছিল,
পরীক্ষা টি ছিলো অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের। ভাবছিলাম এই প্রথম আমি কিনা,
অনেক গুলো ইমপ্রুভ দিতে আসছি
একদা প্রথম পরীক্ষায় ভাবতাছি,
আমার সমানে পিছন চেনার মাঝে কেউ থাকবে না,
অথচ পিছন টেবিল দেখি পরিচিত এক সেমিস্টারের
একটি ছেলে সামনে একটি মেয়ে!! মেয়েটিকে কখনো দেখি নাই, আমাদের ডিপার্টমেন্ট কথা প্রশ্নই আসে না।
ভাবছি আমার উপরের উপর সেমিস্টারের কেউ, নয়তো নিচের সেমিস্টারের। একদা প্রথম দিন পরীক্ষা দিয়েছিলাম
সামনে বসা মেয়েটি আমায় নক করল।।
বললঃ এই এই তুমি পারো??
কথাটি খুব নিচু গলায় তারপর,
আমি বিরক্ত অনুভূতি হলাম, কারন খাতায় ভুল লেখার অভ্যাস নাই খালি পাতা নিয়ে বসে থাকার
অভ্যাস আছে। একদা কোন উওর দিলাম না।
পরবর্তীতে দিন ছিল ব্যষ্টিক ২য় পত্র পরীক্ষা টিরকোন এক কারনে আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম আপনি কী দেন দেখি?
আমাকে দেখাল, আজো তুমি পরীক্ষা দাও?
এই কথা গুলো এড়িয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক।
তারপর সেদিন আমাদের মাঝে খুব একটি
ভালোও সম্পর্ক হয়ে গেলো।, একদা জানতে পারি সে আমাদের ডিপার্টমেন্ট একটি মেয়ে অথচ কোনো দিন দেখা হয়নি ।
নামটি ছিল শারমিন এবং অপর পিছনের ছেলেটি নাম বিল্লাল, আমার নামটি না বলাই ভাল
গল্প তো গল্পই।।
আপনি থেকে তুমি শব্দটি খরচ করছি একদা।
তারপর ম্যাথ পরীক্ষা দিতেছিলাম ভালো
হয়েছে মোটামুটি কিন্তু শারমিন নামের মেয়েটির
সাথে পাঠ্য বন্ধু হয়ে গেলাম,
ভালো বোঝাপড়া ক দিনের মাঝেই হয়ে গেলো।
একদা তার লেখা এবং দেখলাম ফাস্ট ক্লাস লেখার হাতেই একটি মেয়ে সে খুবই ভালো ছাত্রী,
কথায় আছে ক্ষণিকের পরিচয় অনেক
ভালো লাগা জন্ম দেয়।
সব গুলো পরীক্ষা দিতিছিলাম আমার ভালো
পাঠ্য সম্পর্ক মাঝে অন্য রকম ভালো লাগা
তৈরি খুবই অতপর তিনটি পরীক্ষা শেষ।।
নামটি জানা হলোনা জিজ্ঞাসা করলাম
তোমার নামটি কী বলল শারমিন।।
মজার ঘটনাটি হচ্ছে শারমিন নামক
একটি মেয়ে আমার ফেজবুক নামক ভাইরাল এ আমার সবচেয়ে নক করা ইনবক্স একটি মেয়ের নাম শারমিন ।।
অনেক দিন ধরে সময় পাড় করছি তার সাথে কখনো দেখা হয়নি মেয়েটিকে। শারমিন।
এমনকি একটি ছবি আমাকে পিক কখনো
দেখায় নি অন্ধ বিশ্বাসী আমি!!
এটা সত্য সেই মেয়েটি একটি ভালো মেয়ে।।
এবং বাসার পরিচয় সহ সব জানিয়ে দিছে।
কিন্তু তাকে অন্ধতর মাঝেই আমাদের ফেজবুক সময় কাটানোর মহূত ভালো লাগা আমার মাঝে।
কেউ কেউ বলে এটি একটি ভুল ফেক আইডি
না যারা বলছে ওকথা তাদের অনেকে ব্লক করে দিছে। কিনা, সে
পাঠ্য সেমিস্টার মেয়েটির কথা শুনে শারমিনের খুব মুখের দিকে একবার তাকালাম মনে হচ্ছে
নতুন কিছু দেখছি, ভালো লাগা যেনো আমার! করে, সব কিছু দেখছি তাহার চলা কথা স্টাইল
এমনকি মনে হচ্ছে না কোনোদিক ঘাটতি পাইনা।
এবার নিজের কাছে নিজেই অভাব বোধ করি,
তাকে নিয়ে কী স্বপ্ন দেখা যায়?
কখনো যায় আবার যায় না , কারন তার তো পূর্বে
কেউ থাকতে পারে, সেই হিসেব একদমই মিলানো, যায় না। তারপর ভালো যেনো আমার কাছেই টানে।
ওই ফেজবুক বন্ধু টি ভাবছি ওই মেয়েটি কিনা
এমনো মাঝে মাঝে সেই এই তাকেই মনে হয়।
তারপর আবার ভাবি এসব কী ভাবছি ভুল যত্ত সব,অনলাইন চেক করি,তম যাক তৃতীয় পরীক্ষা ছিলো আইসিটি পরীক্ষা
মনে হচ্ছে ও বুঝি আর এক্সাম দিবে না একদা মনে হলো ওর পরীক্ষা আপ্লুত হয়ে জিজ্ঞাসা করলাম তোর আর পরীক্ষা আছে,,?
বাজারের মার্কেট দেখা পথে অনেক সাহসীকতার
মাঝে,,
শেষ পরীক্ষার দিন আমার খুব মন খারাপ ছিলো
বাসা থেকে পরীক্ষা দেওয়া প্রযন্ত আমার কাছে
একটি বিরক্ত অনুভূতি জাগছিল।
কিন্তু সেইদিন শারমিন সাথে স্বার্থপরী আচরণ করলাম কিন্তু খারাপ লাগছে আমার মনে হয়
আমি ভুল করতেছি ও এক বার বলে ও ফেলছে
শেষ দিন তুমি এমন করো,,?
কথাটি যতোটা সহজ ততই সহজ হয়নি শেষ
আমার আমার এক্সাম খুব ভাল হয়েছে সত্ত।
সত্ত নিজের মাঝে নিজকে অস্থিরতা বিরাজ করাতে আমার খুব খারাপ লাগছে!!
অতঃপর শারমিন আমায় অনেক ভুল বুঝে
আমি শেষে অনেক মন খারাপ করে পরীক্ষা হলের পিছন রুমে দিয়ে বেরিয়ে আসছি সত্ত
কিন্তু শেষ টুক ভালো লাগা আমার মাঝে
আমি বিরাজ করতে পারি নি,, কথায় বলে
শেষ ভালো যার সব ভাল তার।।
অতঃপর তার সাথে আর আমার দেখা হলোনা।।
ক্ষণিকের অতিথি সে আমার ভেতর ভাঙার গল্প।
বিষয়শ্রেণী: গল্প
ব্লগটি ১৪৮ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ০৪/০৩/২০১৯

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • পরিতোষ ভৌমিক ২ ০৭/০৩/২০১৯
    আপনি কি ইংলিশ মিডিয়ামের ষ্টুডেন্ট ?
    • নাহ ভাই !!যে কথা গুলো সকল মানুষে বুঝে
      তা বলা যায়,, যেমন আপনি কথায় কথায় ফাইন বলেন।।
      কিন্তু ফাইন কথাটি সকলের পরিচিত ,,
      সাহিত্য মিডিয়ায় প্রচলিত কথা কোথায় বাঁক্য রসে
      উপস্থাপন করা যায় ।
  • ভালই
  • বাক্যের লাইনগুলো ঠিকভাবে সাজানো হয়নি।
 
Quantcast