www.tarunyo.com

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

গোপলার কথা - ৪০

কালো অক্ষরেই আলো
-------------------

আমি ছোটবেলায় কোনদিন বিশেষ খুব একটা খেলাধূলা করিনি। তখন টিউশনের রেওয়াজ ছিল না। কিন্তু বিকেলে স্কুল থেকে ফিরে নিজস্ব প্রাণের টানে ক্লাসের বই বার বার পড়তাম।
আমি গাছে উঠতে পারি না। ঘুড়ি ওড়াতে শিখি নি। কাঁচের গুলি খেলা একটু আধটু পারতাম তবে সবাই আমাকে ঠকিয়ে দিত। তাই সময় পেলে অন্যদের খেলা দেখতাম। দু এক দানের পরেই চলে আসতাম। বিল পুকুরের ধারে ঝিরঝিরে বৃষ্টিতে কৈ মাছ উঠত। আমি ধরতে পারতাম না। তাই আর খুব একটা চেষ্টাও করতাম না। ঘরের কোণে কোনদিন রান্নাবাটি খেলি নি। আমি জীবনে কোনদিন কোন পুতুল পাই নি। পুতুল পুতুল খেলাও খেলি নি। যেটুকু ফুটবলে লাথি মেরেছি তা সৈভাগ্যক্রমে। আমাকে কেউ খেলতে নিত না। কিংবা খেলতে পেলেও শুধু দৌড়েছি বা গোল পোষ্টে দাঁড়িয়েছি। পায়ে বল পেতাম না বা পেলেও সদ্ব্যবহার করতে পারতাম না। ভাঙা কাঠের বা তাল পাতার গোড়ার দিকের দাঁত বের করা অংশ বাদ দিয়ে তাকে ব্যাট বানিয়ে পলিথিন প্যাকেট পোটলা করে বল বানিয়ে ক্রিকেট খেলত অনেকে। আমি তাতে শুধু মাঠের ধারে দাঁড়িয়ে থাকতাম। খেলতে পারতাম না। আমার মত অনেক ছেলেরা মেয়েরা সারাদিন মাঠ ঘাট দাপিয়ে বেড়াত। শুধু খেলা আর খেলা। আমি এরকম করতাম না।
স্কুলের খেলাধূলায় আমার অংশগ্রহণ ছিল না। দু একবার দৌড়াদৌড়িতে অংশ নিয়ে কিছুই পারতাম না। অনেকেই এসবের জন্য পুরস্কার নিত। আমি হাঁ-করে দেখতাম। আমি হাতের লেখা, আবৃত্তি, বিতর্ক, শ্রুতিলিখন, গল্প লেখা ইত্যাদি বিষয়ে অংশ নিতাম। মাঝে মধ্যে দু একটা পুরস্কার পেতাম। 
পুকুরে একডুবে অনেকেই তলার পাঁক তুলে আনত আমি পারতাম না। বাকীরা বলত - ভেদা (বোকা) ছেলে। শালুক তুলতে ডিঙি বেয়ে অনেকেই চলে যেত অনেকদূর। আমি পারতাম না। ডিঙির ব্যালেন্স রাখতে পারতাম না। নিজেদের সাইকেল ছিল না। এর ওর কাছে একটু আধটু পেয়েছি কিন্তু চালানো শিখতে পারি নি। শিখেছি তিরিশের পরে নিজের আয়ে সাইকেল কিনে।
একাদোক্কা গোল্লাছুট কিত্ কিত্ এসব খেলা আমি খেলতাম খুব কম।বিশেষ মনে পড়ে না। তাছাড়া এসব ভাল পারতাম না। পাঁচ গুটি খেলায় অনেকেই হাতের উল্টো পিঠে পাঁচটা গুটি রাখতে পারত। আমি একটাও পারতাম না। তাই এসব আমি অনেককে খেলতে দেখেছি। কিন্তু নিজে খুব একটা খেলি নি।
বাড়ির কাজকর্মে নিয়মিত হাত লাগিয়েছি। ধান রোয়া, ধান কাটা, জমিতে সার ছড়ানো, মাটি কোপানো, জল সেচ, আল দেওয়া, কাদা ক্ষেত সমান করা, বাজার হাট করা, কলমী শাক শুশনি শাক তুলে আনা, বেগুন লঙ্কার চাষ করা, মায়ের সাথে রান্নায় সহযোগিতা করা ইত্যাদি সব কাজ করেছি। এর বাইরে যখন যেটুকু সময় পেয়েছি সেই শিশুবেলা থেকে পড়াশুনা করেছি। ক্লাসের পড়া তো করতাম। তার বাইরে তখন থেকে নিজস্ব তাগিদে লাইব্রেরীর সদস্য ছিলাম। খুব কবিতা মুখস্থ করতাম আর আবৃত্তি করতাম। পাড়ার লোকেরা বলত - ছেলেটা কি রে? সবসময় পড়া আর পড়া। পাগল হয়ে যাবে দেখছি।
পাগল কিন্তু হই নি।
এই পড়ার ইচ্ছে বা তাগিদে আমাকে কেউ জোর করে নি। খুব সুন্দর আঁকতে পারতাম। তবে তা শুধু পেনসিলে বা কলমে। কোনো রঙ পাই নি।
এই যে এত খেলা বা কোন খেলাই আমি খেলি নি। শুধু পড়া পড়া করে গেছি। শিশুকালের বাল্যখিল্যতা করি নি। উন্মুক্ত আকাশের সাথে বইয়ের কালো অক্ষরে যুক্ত হয়েছি। তাতে কিছু একটা করে আজ সমাজের বুকে এগিয়ে আসতে পেরেছি।
কিন্তু যারা সেদিন আমার বাল্যজীবনে ছিল, সেইসব শিশুখেলায় খুব এক্সপার্ট ছিল, সারাদিন মাঠে ঘাটে দাপিয়ে খেলত। তারা এখন চাষবাস করে। প্রতিবেশীর সঙ্গে ঝগড়া করে। আমাকে যেভাবে খেলায় ধাপ্পাবাজি করত আজও এর ওর সঙ্গে পার্টি পলিটিক্স আর ধাপ্পাবাজি করে। হিংসে করে মারামারি করে।
তারা তো বইয়ের ভার থেকে দূরেই ছিল। শিশুকাল ঘুড়ি উড়িয়ে, দৌড় ঝাঁপ করে, রান্নাবাটি খেলে, বর বউ খেলে কাটিয়েছে শিশুকাল খুব এনজয় করেছে, তাহলে তারা পিছিয়ে পড়ল কেন? তারা প্রায়ই স্কুল বন্ধ করত। আজ বৃষ্টির জন্য, কাল খরার জন্য, পরশু শীতের জন্য। আমি কখনও স্কুল বন্ধ করি নি। তাদের মত আমার শৈশব, আমার শিশুকাল বইয়ের ভার বিহীনে কাটে নি। আরো বই আমাকে টানত। পড়তাম। পড়ে বুঝেছি যা জানতে চাই, যা জানতে চাই না সব আছে বইয়ে। এখন মনে হচ্ছে সেই শৈশবে কেন আরও পড়ি নি। এখন পড়ার আগ্রহে সেই ধৈর্য এখন আর খুঁজে পাচ্ছি না। এখন যারা বলছেন পড়ার ভারে শিশুকাল হারিয়ে যাচ্ছে তাদের কাছে এ আমার বিনীত প্রশ্ন।
তাই শিশুদের মধ্যে বইয়ের ভার বেশি বেশি করে চিৎকার করবেন না। পড়ে কেউ কোনদিন পাগল হয় নি। হবেও না। এই ভার ছেড়ে দিলে শৈশব কেটে যাবে তারপর পড়বে বেকায়দায়। বরং শৈশবের ভার বহন পরবর্তীতে (যখন অনেক পড়া শুরু হবে, দায়িত্ব বাড়বে) তা কখনওই ভারী মনে হবে না।
নিজের বই নিজে বইছে। নিজের বই নিজে মুখ গুঁজে পড়ছে। আরও গুচ্ছের নানা রকমের বই পড়তে হচ্ছে। ক্ষতি কি? কষ্ট হোক না। কে বলেছে ছেলেটি বা মেয়েটি কষ্ট সহ্য করতে চায় না? কে বলেছে কষ্ট করতে পারবে না? সে চায় আপনার মত কষ্ট করেই বড় হতে। কষ্টকে সে অনুভব করতে চায় না একেবারে বুঝতে চায় অনুভূত হতে চায়। কেউ কি শুনেছে পড়ার চাপে ছেলে কিংবা মেয়েটি সুইসাইড করেছে? কেউ সুইসাইড করে পড়ার জন্য নয়, তার ফলাফলের চাপ দেওয়ার জন্য। বাবা মা বা অভিভাবকের এই চাপ সুইসাইডের অন্যতম কারণ।
'আমার মত তোমাকে কষ্ট করতে হবে না' বলে তাকে দূরে সরিয়ে রাখবেন না। তার ব্যাগ তাকে বইতে দিন। তার কাছ থেকে কেড়ে নেবেন না। তার পড়া তাকে আরো বেশি করে পড়া পড়তে দিন। ওটা কাজে লাগবে না, পড়তে হবে না। রেখে দাও বলে তাকে সরিয়ে রাখবেন না।
কে বলেছে বেশি পড়া শিশুটির শৈশব নষ্ট হয়ে যাচ্ছে? পড়া থেকে সরিয়ে, বই থেকে সরিয়ে, কত আর পড়বে বলে বলে আপনি তার শৈশব নষ্ট করে দিচ্ছেন না তো? বেশি বেশি পড়ার ধৈর্য্য, মনে রাখার দুর্দান্ত ক্ষমতা ইত্যাদির বয়স কিন্তু একমাত্র শৈশব। বয়সকালে আপনি কি তা পারবেন?   
শৈশব যেমন আকাশ মাটি সবুজ দেখার বয়স, তেমনি জীবনকে চেনার বয়স। এই জীবন চেনার সহজ এবং প্রধান অবস্থান বই পড়া। কালো অক্ষরই জীবনে আলোর সন্ধান। যে যতটা এই কালোর সাথে পরিচিত ততটাই জীবন দর্শনে সে অগ্রবর্তী।
আপনি শৈশবকে যতটা ভারমুক্ত রাখার প্রয়াস করবেন ততটাই সে ফাঁকি বা ফোকটে পাওয়ার উপলব্ধি অর্জন করবে। আজকাল দিকে দিকে কাটমানি, পারসেণ্টেজ, কমিশন, বখরা ইত্যাদির যে উৎপাত শুরু হয়েছে তা এই ভারমুক্ত জীবন ভাবনা থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রবাহিত হচ্ছে না তো? ভেবে দেখবেন।
স্কুলের পড়ার সাথে নাচ, গান, আবৃত্তি, আঁকা, হাতের কাজ সবকিছু শেখানো উচিত। যতটুকু পারবে। পড়াশুনার এবং পড়াশুনা জাতীয় বিষয়ে শৈশব ব্যস্ত থাকুক। বাবা মা যেমন সারাদিন অফিস ও সংসার সম্পর্কে ব্যস্ত থাকে তেমনি। এই ব্যস্ততায় কেটে যাওয়া সময় শৈশব ঠিক তার নিজস্ব বুঝে নেবে। আমরা বড়রা 'হায় হায় ছেলেটা কত কষ্ট করছে, মেয়েটা আর কত করবে' এই ভাবনায় নানান ভারমুক্ত দিক খুঁজে শৈশবকে সরিয়ে দিচ্ছি।
কর্ম চঞ্চল শিশুটি কিন্তু এই ভারমুক্ত অবস্থানে ঠিক তার ভার জুটিয়ে নেয়।
কি রকম? যখন সে দিনের যে সময়ে পড়ছে না বা পড়া জাতীয় কিছু করছে না সেই সময়ে যেটা তার দেখা উচিত নয় তাই দেখে। যেটা তার ভাবা উচিত নয় তাই ভাবে। যেটা তার করা উচিত নয় তাই করে।অনেকটা বড়দের অনুকরণে, বড়দের মত, বড় হয়ে গেছে ভেবে।
কেন না সে ভারমুক্ত হতে চায় না তাই। যা পাচ্ছে তাতেই ভারী হচ্ছে। আর এই ভারী হওয়ার জন্য তার বুদ্ধি, ভাবনা সবসময় নিষিদ্ধের দিকে হাত বাড়ায়। এবং তা লুকিয়ে রপ্ত করার আপ্রাণ চেষ্টা করে। অর্থাৎ সে ভারী হয়ে ওঠে। আপনি যে তাকে চাপমুক্ত করতে চেয়েছেন। উল্টো চাপ কিন্তু বুদ্ধিতে বৃদ্ধি ঘটাল। তাহলে লাভটা কি হল? এখন তার পরিণাম মোবাইল, ইণ্টারনেট, ট্যাব, অ্যাপ্স এবং গেম, প্রাণঘাতী গেম ইতাদি। যা ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করছে।   
তাই খাওয়ার ব্যাপারে, পোশাকের ব্যাপারে, চলা, বলা, দেখা, শোনা ইত্যাদি আদব কায়দার সামাজিক ভার শিশুকালের উপর না চাপিয়ে বই পড়ার চাপ চাপান থাক। তাহলে তা কখনওই শিশুকালের কাছে ভারী মনে হবে না।
মনোবিদ, তাত্ত্বিক, কাউন্সেলার, অভিজ্ঞ, শিক্ষাবিদ ইত্যাদি সম্প্রদায় কোনভাবে প্রত্যক্ষ অবস্থানে যুক্ত না হয়ে শুধুমাত্র এক্সপেরিমেণ্টাল মন্তব্য ও ব্যাখ্যা দেন। যা কোনভাবেই খুব একটা কার্যকরী না। যে শিশুকাল পড়ার ভারে ন্যুজ্ব সেই অতিক্রম করেছে হাজার পথ।
তাছাড়া শিশুকাল সম্পর্কে বা শিশুদের মানুষ করার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোন তত্ত্ব, থিওরি বা অবস্থান নেই। কবিতা গল্প, উপন্যাস, আঁকা, আবৃত্তি, গান ইত্যাদির যেমন রূপরেখা আছে সেই অনুযায়ী এগিয়ে তাকে ভেঙে চূরে আবার নতুন অবস্থানে আনা যায়। কিন্তু শিশু মানুষ করা ফ্যামিলি অনুযায়ী, সমাজ অনুযায়ী, অবস্থান অনুযায়ী পরিবর্তনশীল। কেউ বলতে পারবে না রবীন্দ্রনাথের মা এ রকম মানুষ করেছিল তুমি এভাবে মানুষ করলে ছেলে তোমার রবীন্দ্রনাথ হয়ে যাবে, তোমার মেয়ে মাদাম কুরী হয়ে যাবে কিংবা বিদ্যাগাসর হবেই হবে, না হলে রামমোহন তো নিশ্চয়ই হবে।  
কিন্তু একটা ব্যাপারে সবাই একমত হবেন যে এদের সবার জন্য শিক্ষা দেওয়ার ক্ষেত্রে তা কখনই বই থেকে দূরে সরিয়ে নয়। সেই বইয়ের কালো অক্ষর সবুজ আগামীর পথ পরিক্রমা। তাই পড়া এবং পড়া সংক্রান্ত বিষয়ের সঙ্গে যে শিশুকাল যত বেশি জড়িয়ে ততই সে অগ্রবর্তী।   
অথচ শৈশব যদি না চায় সে নিজেই সরে আসবে। কেন না পড়াশুনা বা এই পড়াশুনার আঙ্গিক কোন শিশুকাল 'হ্যাঁ' বলবেই না। সবসময় না না করবেই। একটু জোর করে ধরে বেঁধে করাতে হয়। স্কুল থেকে, বাড়ি থেকে বা টিউশন থেকে সেই জোর বা চাপ ধরে রাখতে হবে।   
পড়াশুনা বা তার আনুসঙ্গিক ব্যাপারে শিশুটির সাথে মিশে আপনি এগিয়ে নিয়ে চলুন। যদি আপনি তার পড়াশুনা ও পড়াশুনা সংক্রান্ত আনুসঙ্গিকের সাথে যুক্ত থাকেন তাহলে  ঠিক জেনে যাবেন আপনার শিশুটির কেমন বহন ক্ষমতা। সে সেই অনুযায়ী সে তার ভার কাঁধে তুলে নেবে।
আমাদের ভাবার দরকার নেই। সব শিখুক। ব্যস্ত থাকুক তারপর তার আগ্রহ অনুযায়ী নিজে খুঁজে নেবে কি তার চাই, আর কি চাই না।
এই সব শেখার মধ্যে আবার বিতর্ক। কেন না আমরা বড়রা শিশুটিকে সব কিছুতেই পারঙ্গম করার প্রয়াসে লেগে থাকি। সে নাচ হোক গান হোক আবৃত্তি হোক কিংবা স্কুলের পরীক্ষা সবেই নাম্বর ওয়ান বা তার কাছাকাহি হতেই হবে। ফলে কোন শৈশব সেই চাপ নিতে পারে না।
তোমাকে ক্লাসে ফার্স্ট হতেই হবে, ৯৫ এর নীচে নামা চলবে না, গানে একেবারে প্রাণ ঢেলে গাইতে হবে লতার মত, নাচে ডোনাকে ভুলে গেলে চলবে না, আবৃত্তিতে ঊর্মিমালা কি রকম বলছে শুনতে পাস নি, যোগেন চৌধুরীর ছবিটা দেখ তারপর রঙ দে ইত্যাদি ইত্যাদি। এগুলোই হল আসল ভার। এর থেকে মুক্তি দিন। শৈশব সেটাই চায়।
এ রকম প্রতিটি পদক্ষেপে প্রত্যাশা করুক শিশু নিজে। অভিভাবক নয়। অভিভাবক কর্মযজ্ঞের রাশ ধরে রাখবেন। চেষ্টার সাথে লেগে থাকবেন। ফল চেষ্টার সমানুপাতিকে লাভ হবেই হবে।
ভার কমাতে গিয়ে কোনমতেই যেন পড়াশুনা, বই কিংবা পড়াশুনা সংক্রান্ত বিষয় থেকে শিশুটির মুখ না ঘুরে যায়। কোন জীবনই ভার মুক্ত নয়। সহজ কর্ম পথে যদি খাবার সংগৃহীত না হয় তাহলে সে ঘুর পথে সংগ্রহ করবেই। খিদে বসে থাকবে না। এই ঘুর পথ দিনকে দিন বাড়ছে। কেন না কর্ম জীবনের পথে অন্য খেলা। সে রকম প্রাণ চঞ্চল শিশু একটু বুঝতে শিখে যদি মুখ ঘুরিয়ে নেয় কালো অক্ষর থেকে ( অর্থাৎ পড়ছে কিন্ত চেষ্টা কম) তাহলে ফেরানো খুব মুশকিল। কেন না সে তার চেষ্টা পড়াশুনা বাদ দিয়ে অন্য অবস্থানে ব্যয় করছে। যা সমাজের পক্ষে হানিকারক।   
পড়াশুনা এবং পড়াশুনা সংক্রান্ত বিষয় কখনওই শৈশবের কাছে ভার নয়। ভার হতেই পারে না। বড়রা, বাবা মায়েরা যদি বৃহৎ আশা করার আকাঙ্ক্ষায় শিশুটির কাছে ভারী না হয়ে ওঠে। তাহলে শৈশব তার নিজস্ব দিশা খুঁজে পাবে।
বিষয়শ্রেণী: সমসাময়িক
ব্লগটি ১০৮ বার পঠিত হয়েছে।
প্রকাশের তারিখ: ২৯/০৭/২০১৭

মন্তব্য যোগ করুন

এই লেখার উপর আপনার মন্তব্য জানাতে নিচের ফরমটি ব্যবহার করুন।

Use the following form to leave your comment on this post.

মন্তব্যসমূহ

  • আ'বিরু সাবীল ৩০/০৭/২০১৭
    আপনার ফ্ল্যাশব্যাক তো অসাধারন। অ্যা'ম ইম্প্রেস্ড! অভিভাবকদের সুন্দর পরামর্শ দেয়ার জন্যে অনেক ধন্যবাদ। শুভকামনা নিরন্তর।
 
Quantcast